৪০ কিলোমিটার যানজট ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে

Wednesday, March 25th, 2020
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ৪০ কিলোমিটার যানজট

ডেস্ক নিউজঃ ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এই যানজটে আটকা পড়েছে করোনার প্রভাবে ১০ দিনের দীর্ঘ বন্ধে ঘরে ফেরা হাজার হাজার যাত্রী। গতকাল মঙ্গলবার রাত ১০টা থেকে মহাসড়কের চন্দ্রা হতে নাটিয়াপাড়া পর্যন্ত বেলা ১২টা পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এদিকে যানজটে আটকা পড়ে যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এতে বেশি দুর্ভোগে পড়েছেন নারী ও শিশুরা।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সারাদেশে সরকারি-বেসরকারি অফিস আদালত ১০ দিনের বন্ধ ঘোষণা করায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে একযোগে মানুষ ঘরে ফিরতে মহাসড়কে হুমরি খেয়ে পড়ে। এতে মহাসড়কে যানবাহনের চাপও কয়েকগুণ বেড়ে যায়। এছাড়া মহাসড়কের মির্জাপুর উপজেলার হাটুভাঙ্গা, জামর্কী ও কদিম ধল্যায় ৬ লেনের আন্ডারপাসের কাজ চলমান থাকায় এবং রাস্তার ওই অংশে
খানা-খন্দকের সৃষ্টি হওয়ায় এই যানজটের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে মির্জাপুর হাইওয়ে পুলিশ।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত যানবাহনের চাকা ধীর গতিতে চললেও যানজট অব্যাহত রয়েছে। গাজীপুরের চন্দ্রা থেকে দেলদুয়ার উপজেলার নাটিয়াপাড়া পর্যন্ত ১৪ ঘণ্টা ভয়াবহ এ যানজটে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন হাজারো যাত্রী। বেশি দুর্ভোগে পড়েছেন নারী ও শিশুরা। তাদের প্রকৃতির ডাকে সারা দিতে বিপাকে পড়তে হচ্ছে বলে জানা গেছে।

গতকাল মঙ্গলবার রাত ১টায় ঢাকা থেকে আসা উত্তরবঙ্গগামী বাসের যাত্রী রুমিনা বেগম জানান, করোনার কারণে ১০ দিনের ছুটি হওয়ায় গ্রামে বাড়ি যাচ্ছি। রাত ৩টার দিকে চন্দ্রা এলাকায় যানজটে আটকা পড়েন। এরপর গোড়াই যানজটে আটকা পড়ে প্রায় ৮ ঘণ্টা ধরে কুরণীতে আটকা পড়েছেন।

উত্তরবঙ্গ থেকে ছেড়ে আসা আলু ভর্তি ট্রাক চালক আব্দুর রহিম বলেন, গতকাল মঙ্গলবার ভোর ৪টায় বগুড়া থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে আজ বুধবার সকাল ১১ টায় তিনি মির্জাপুর পর্যন্ত এসেছেন।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর গোড়াই হাইওয়ে থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান জানান, মহাসড়কে হঠাৎ যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি পাওয়ায় এই যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। তবে ধীর গতিতে হলেও ১২ টার পর যানবাহনের চাকা চলছে।