সোয়া কোটি টাকার চেকে সই ব্যবসায়ীকে তুলে এনে

Monday, February 17th, 2020

প্রতীকী ছবিপ্রতীকী ছবি

ডেস্ক নিউজঃ মধ্যরাতে বাসায় কলবেল বেজে ওঠে। পরিবারের সবাই তখন আতঙ্কিত। দরজা খোলেন ব্যবসায়ী মেহেদী শেখ। দরজার সামনে দাঁড়ানো পুলিশের দুই দারোগা। তাঁরা জানালেন, পাওনা ৫০ লাখ টাকা পরিশোধের জন্য তাঁকে ধানমন্ডি থানায় যেতে হবে।

মেহেদী শেখ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখতে চান। তা না দেখিয়ে জোর করে তাঁকে গুলশানের কালা চাঁদপুরের বাসা থেকে নেওয়া হয় ধানমন্ডি থানায়। সেখানে একটি কক্ষে রাতভর আটকে রাখা হয় মেহেদীকে। পরদিন দুপুর ১২টার দিকে তাঁকে জানানো হয়, বাসা থেকে চেক বই এবং ট্রেড লাইসেন্সের মূল কপি আনতে হবে। আটক ব্যবসায়ীর দুই স্বজন এগুলো নিয়ে থানায় হাজির হন। একটি চেকে ৬৫ লাখ, আরেকটি চেকে ৬০ লাখ টাকা লিখে সই করতে বাধ্য করা হয় মেহেদীকে।

এখানেই শেষ নয়, বিকেল পাঁচটার দিকে ধানমন্ডি থানা থেকে ওই ব্যবসায়ীকে পুলিশের গাড়িতে করে নেওয়া হয় পুলিশের রমনা অঞ্চলের উপকমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমানের কার্যালয়ে। মেহেদী শেখের তথ্য অনুযায়ী, পুলিশের এই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গেই তাঁর মূল বিরোধ। উপকমিশনার সাজ্জাদ নিজের ডায়েরিতে কবে, কোন চেক ক্যাশ হবে, সেই তারিখ লিখিয়ে নেন। নিচে মেহেদীকে তারিখসহ সই করতে বলা হয়। আর চেকের পাতায় টাকার অঙ্ক লেখেন উপকমিশনারের শ্যালক মাসুদ হোসেন ওরফে শুভ্র।

গত ২২ জানুয়ারির এ ঘটনার নানা তথ্যপ্রমাণ রয়েছে। এগুলো পর্যালোচনা করে ব্যবসায়ীকে বাসা থেকে তুলে নেওয়া, ধানমন্ডি থানায় সারা রাত রাখা এবং পরদিন মগবাজারে পুলিশের রমনা বিভাগের কার্যালয়ে নেওয়ার প্রমাণ মেলে।

তা ছাড়া এ ঘটনার বিস্তারিত জানিয়ে মেহেদী ১২ ফেব্রুয়ারি পুলিশের মহাপরিদর্শক এবং ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। এতে তিনি জীবনের নিরাপত্তা ও আর্থিক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার আবেদন জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম গতকাল বলেন, এই অভিযোগ তিনি পেয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

দুই পক্ষের অন্তত পাঁচ ব্যক্তির সঙ্গে আলোচনা করে জানা যায়, পুলিশ কর্মকর্তা সাজ্জাদুর রহমানের সঙ্গে ব্যবসায়ী মেহেদীর বিরোধের সূত্রপাত টাকা লেনদেন নিয়ে। এই ব্যবসায়ী বিদেশ থেকে গুঁড়া দুধসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানি করতেন। সাজ্জাদুর রহমান তাঁকে নগদ ৫০ লাখ টাকা দিয়েছিলেন, প্রতি মাসে এর বিনিময়ে আড়াই লাখ টাকা দিতে হতো। মেহেদী নগদ টাকা বুঝে নিয়ে ৫০ লাখ টাকার একটি চেক দিয়েছিলেন। প্রতি মাসে লাভের টাকা নিতেন পুলিশ কর্মকর্তার শ্যালক মাসুদ হোসেন।

অভিযোগ রমনার ডিসির বিরুদ্ধে। দুই থানার দুই দারোগাও জড়িত। ডিএমপি কমিশনার বললেন, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত হবে।

ব্যবসায় লোকসান হওয়ায় গত বছরের মাঝামাঝি মেহেদী লাভের টাকা দেওয়া বন্ধ করে দেন। এরপর জামানত হিসেবে দেওয়া ৫০ লাখ টাকার চেকটি ব্যাংকে জমা দেওয়া হয়। চেক প্রত্যাখ্যাত (ডিজঅনার) হলে মামলা করেন সাজ্জাদুর রহমানের শ্যালক মাসুদ হোসেন। সেই মামলায় জামিনে আছেন মেহেদী। এরই মধ্যে তাঁকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে আটকে রেখে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকার দুটি চেকে সই নেওয়া হয়। এরপর সোয়া কোটি টাকার ওই চেক দুটি প্রত্যাখ্যাত হলে ৪ ফেব্রুয়ারি মেহেদীকে উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন সাজ্জাদুর রহমানের শ্যালক মাসুদ ও নিকটাত্মীয় হাদিউজ্জামান।

ব্যবসায়ীর সঙ্গে এমন লেনদেন বা টাকা উদ্ধারের কাজ পুলিশ কর্মকর্তা করতে পারেন কি না, জানতে চাইলে পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক ও সাংসদ নূর মোহাম্মদ বলেন, টাকাপয়সা উদ্ধারের দায়িত্ব পুলিশের নয়। তবে বিপদগ্রস্ত কেউ পুলিশের শরণাপন্ন হলে সাধারণত পুলিশ দুই পক্ষকে ডেকে সমঝোতা করে দেয়। সমস্যাটা হলো, কেউ এটা ভালো মন নিয়ে করে, কেউ করে খারাপ মন নিয়ে। কিন্তু সমস্যা সমাধানে কোনো পুলিশ সদস্য যদি চাপ দেন, ভয়ভীতি দেখান, সেটা নিঃসন্দেহে অপরাধ।

দুই দারোগা যা বলেন
ব্যবসায়ী মেহেদীকে বাসা থেকে ধরে আনেন হাজারীবাগ থানার এএসআই রাজু আহমেদ এবং ধানমন্ডি থানার এসআই জিল্লুর রহমান। সাজ্জাদুর রহমান সাতক্ষীরা, গোয়েন্দা পুলিশ এবং নারায়ণগঞ্জ জেলায় কর্মরত থাকার সময় রাজু তাঁর সঙ্গে ছিলেন।

রাজু আহমেদ বলেন, তিনি মেহেদী শেখ নামের কাউকে ধরতে গিয়েছিলেন, এটা তাঁর মনে পড়ছে না। তবে ব্যবসায়ী মেহেদী শেখ জানান, ঘটনার দিন রাজু তাঁর বাসায় গিয়েছিলেন।

এসআই জিল্লুর রহমানও বলেন, এএসআই রাজু তাঁর সঙ্গে ছিলেন। হাজারীবাগ থানার পুলিশ কেন ধানমন্ডি থানার ঘটনায় গিয়েছিল, তা জানতে চাইলে তিনি এর জবাব দিতে পারেননি। জিল্লুর বলেন, ধানমন্ডি থানায় মেহেদী শেখের বিরুদ্ধে পাওনা টাকা আদায়ে সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন হাদিউজ্জামান (উপকমিশনারের আত্মীয়) নামের এক ব্যক্তি। ওই ঘটনায় মেহেদীকে থানায় ডাকা হয়েছিল। গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছাড়া মধ্যরাতে বাসায় যাওয়া এবং থানায় রাতভর আটকে রাখার বিষয়ে তিনি বলেন, আপসে বিষয়টি সমাধানের জন্য তিনি গিয়েছিলেন। তাঁর সঙ্গে কোনো রকম খারাপ ব্যবহার করা হয়নি। এ ছাড়া তাঁর সেখানে যাওয়ার বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অবগত ছিল। অবশ্য মেহেদী বলেন, জিল্লুর রহমান ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পালন করলেও তাঁর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেননি।

৫০ লাখ টাকার উৎস কী?
ব্যবসায়ী মেহেদীর তথ্য অনুযায়ী, তাঁকে ৫০ লাখ টাকা দিয়েছিলেন সাজ্জাদুর রহমান। প্রশ্ন হচ্ছে একজন পুলিশ কর্মকর্তা এভাবে টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন কি না। মেহেদী বলেন, ‘ব্যবসার জন্য ডিসি স্যারের কাছ থেকে আমি টাকা নিয়েছিলাম। তাঁকে লাভের টাকা দিতাম।’

এ বিষয়ে ডিসি সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘টাকা আমি দিইনি, দিয়েছিল আমার শ্যালক। একজন মানুষ যখন টাকা দিয়ে ফেরত পায় না, তখন আমাদের কাছে আসে। আমার শ্যালকও আর ১০ জনের মতো এসেছিল। সে টাকা দিয়ে এখন ফেরত পায় না, লাভও পায় না।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাঁর মনে হয় যা কিছু হয়েছে, তা আইনের মধ্যেই হয়েছে। তা ছাড়া অভিযোগকারীর আমলনামা দেখলে বুঝতে পারবেন, সে কতটা খারাপ প্রকৃতির লোক। এমন লোকের সঙ্গে একজন পদস্থ কর্মকর্তা হয়ে আর্থিক লেনদেন করার বিষয়ে জানতে চাইলে ডিসি বলেন, তাঁর শ্যালক এই লেনদেন করেছে।

চেক লিখেছেন শ্যালক
ধানমন্ডি থানায় মেহেদীর কাছ থেকে যে দুটি চেক নেওয়া হয়, তা লিখেছেন সাজ্জাদুর রহমানের শ্যালক মাসুদ হোসেন। মেহেদীর কাছ থেকে কেবল সই নেওয়া হয়। এই চেকসহ ধানমন্ডি থানা থেকে মেহেদীকে নেওয়া হয় ডিসি রমনার কার্যালয়ে। এ বিষয়ে ডিসি সাজ্জাদুর রহমান বলেন, তাঁর কার্যালয়ে মেহেদীকে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তাঁর ওপর কোনো রকম চাপ দেওয়া হয়নি।

মেহেদী হাসানকে তুলে আনা, পুলিশ হেফাজতে রেখে চেক লিখিয়ে নেওয়া এবং হয়রানি-হুমকির অভিযোগ প্রসঙ্গে উপকমিশনার বলেন, ‘এসব অভিযোগ মোটেও সত্য না। আমি বরং তাকে জিজ্ঞেস করেছি, কোনো চাপ দেওয়া হয়েছি কি না। সে জানিয়েছে, যা কিছু হয়েছে তা আলোচনার ভিত্তিতে আপসে হয়েছে। আমি আপস-মীমাংসায় সহায়তা করেছি।’

এ প্রসঙ্গে মেহেদী শেখ বলেন, বেঁচে থাকার তাগিদে এবং ক্ষমতার দাপট থেকে রক্ষা পেতে তিনি আদালতে যাবেন। ৫০ লাখ টাকা নিয়ে তা পরিশোধ না করা প্রসঙ্গে মেহেদী বলেন, ‘আমি প্রতি মাসে আড়াই লাখ টাকা হিসাবে মোট ৬৭ লাখ টাকা দিয়েছি। আমি এক ব্যক্তির কাছে ৭০ লাখ টাকা পেতাম। সেই টাকা আদায় করে নিয়েছেন সাজ্জাদুর রহমান ও তাঁর শ্যালক। এএসআই রাজু সেই টাকা তুলেছেন, যার তথ্যপ্রমাণ সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে রয়েছে। এ পর্যন্ত তাঁরা আমার কাছ থেকে মোট ১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা নিয়েছেন। তারপরও আমার কাছ থেকে নেওয়া ৫০ লাখ টাকার চেকটি তাঁরা আমাকে ঘায়েল করতে ব্যবহার করেছেন, এখন আবার সোয়া কোটি টাকার দুটি চেক নিয়ে আমাকে বিপদে ফেলার চেষ্টা করছেন।’

ডিসি সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘টাকা নিয়ে সে লভ্যাংশ দেয়নি, মূল টাকাও ফেরত দেয় না। তার ব্যবসার বিষয়টিও পরিষ্কার না।’

ব্যবসায়ী মেহেদী বলেন, ফাইভ ওয়ান বিডি নামের একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মালিক সাজ্জাদুর রহমানের শ্যালক ও নিকটাত্মীয়রা। ওই প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সে তিনি গুঁড়া দুধ আমদানি করে বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়েন। একটি চালান নিয়ে মামলা হয়, আরেকটি ছাড় করাতে করাতে মেয়াদ প্রায় শেষ হয়ে আসে। সব মিলিয়ে তাঁর পুঁজি চলে যায়। পুরো বিষয়টি তাঁরা জানেন। তারপরও তাঁকে নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে।

আইনজ্ঞদের মতে, একজন ব্যবসায়ীকে এভাবে বাসা থেকে তুলে এনে চেক লিখিয়ে নেওয়ার বিষয়টি আইনসংগত নয়। অবশ্য ডিসি সাজ্জাদের মতে, তাঁকে তুলে আনা হয়নি। ডেকে এনে আপস করা হয়েছে।

জানতে চাইলে সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী শাহদীন মালিক বলেন, টাকা ধার নিয়ে দিতে না পারাটা দেওয়ানি অপরাধ। সমঝোতার ভিত্তিতে টাকা লেনদেন হয়েছে এবং সেই টাকা বা লাভ দিতে না পারাটা চুক্তি ভঙ্গ, যা দেওয়ানি মামলায় সমাধান হবে। তাঁর মতে, এ ঘটনার ক্ষেত্রে পুলিশের কোনো বিষয় নেই। কিন্তু বিচার বিভাগের দুর্বলতা হোক বা মানুষের আস্থার অভাব হোক, মানুষ এমন ঘটনায় পুলিশের কাছে যায়। গত পাঁচ-সাত বছরে এটা বেশি হচ্ছে। এর ফলে পুলিশও ক্ষমতার অপব্যবহার করছে। আলোচ্য ঘটনায় পুলিশের একজন কর্মকর্তা যা করেছেন, তা কোনোভাবেই ঠিক হয়নি। এখানে একদিকে তাঁর নিজের সম্পৃক্ততা আছে, অন্যদিকে তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন। এটা যৌক্তিক বা আইনানুগ বলার সুযোগ নেই।