“মুক্তিযোদ্ধার কাছে থেকে দেশের স্বাধীনতা কথা শুনুন”

Sunday, October 20th, 2019

 

মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসাইন (রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি) দেশের জন্য আত্মত্যাগ ও আবেগের কথা মুক্তিযোদ্ধাদের কণ্ঠেই শুনল শিক্ষার্থীরা।

মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ, ২৫ মার্চের গণহত্যা ও মুক্তিযুদ্ধের টানা নয় মাসের ঐতিহাসিক দিনগুলোর কথা শিক্ষার্থীদের কাছে তুলে ধরেন বীর মুক্তিযোদ্ধা শম্ভুর নাথ দে। দেশকে শোষণের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং দেশ স্বাধীন করার কথা উঠে আসে তার কণ্ঠে।

গতকাল শনিবার সকালে পোমরা জামেউল উলুম ফাযিল মাদরাসা কতৃক আয়োজিত মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশে ” বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধকে জানি ” বিষয়ক আলোচনা ও প্রশ্নোত্তর বিষয়ক অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের সামনে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তুলে ধরেন তিনি। শিক্ষার্থীরা যেন মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে সঠিক ইতিহাস জানতে পারে, এ জন্য মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ে এ আয়োজন করা হয়।

পোমরা জামেউল উলুম ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আবু তাহের আলকাদেরী সভাপতিত্ব অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, মাদরাসার উপধাক্ষ মাওলানা মুজিবুল হক, বাংলা প্রভাষক নিজাম উদ্দীন, সহকারী মাওলানা আবদুল কাদের, সহকারী শিক্ষক মোজাহেদুল ইসলাম, জুনিয়র শিক্ষক রফিকুল ইসলাম, অফিস সহকারী খোরশেদ আলম, দেলোয়ার হোসাইন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে শম্ভুর নাথ দে আরো বলেন, ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের পর থেকেই যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেন মুক্তিযোদ্ধারা। মা-বাবাকে না জানিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়ে অনেকে যুদ্ধে অংশ নেন। তাঁদের লক্ষ্য ছিল একটাই, দেশকে পাকিস্তানিদের হাত থেকে রক্ষা করা, দেশকে মুক্ত করা।

পোমরা জামেউল উলুম ফাযিল মাদরাসার অধ্যক্ষ আবু তাহের বলেন, শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানানোর জন্যই আজকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা যখন সরাসরি মুক্তিযোদ্ধাদের কণ্ঠ থেকে যুদ্ধের কথাগুলো শোনে, তখন সেটা তাদের মাথায় ভালোভাবে গেঁথে যায়। পাঠ্যপুস্তক পড়ে মুক্তিযুদ্ধ জানার চেয়ে এভাবে সরাসরি শুনলে তা বেশি কাজ করে বলে মনে করেন তিনি।