জগন্নাথপুরে রাইটার লিটন দেবের রহস্যজনক মৃত্যু

Tuesday, October 8th, 2019

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে থানার মামলা লিখক রাইটার নিউটন দেব লিটনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তিনি হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ থানার পূর্ব বড়চর গ্রামের মৃত নিকুঞ্জ দেবের ছেলে।
নিউটন দেব লিটন দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর ধরে পরিবার-পরিজন নিয়ে জগন্নাথপুরে বসবাস করে আসছিলেন। সর্বশেষ তিনি জগন্নাথপুর পৌর সদরের সি/এ মার্কেট এলাকায় ভাড়াটে বসবাস করেছেন। জগন্নাথপুর থানার সামনে রয়েছে তাঁর কম্পিউটারের দোকান। তিনি দীর্ঘদিন থানায় মামলা লিখে দিতেন। যে কারণে তিনি রাইটার নামে পরিচিত।
জানাযায়, ৭ অক্টোবর সোমবার জগন্নাথপুর থানার এসআই অনুজ কুমার দাশের গ্রামের বাড়ি নবীগঞ্জ থানার মাধবপুর গ্রামে দুর্গা পূজার অনুষ্ঠানে জগন্নাথপুর থেকে যান সাবেক পৌর কাউন্সিলর সুহেল আমিন, নিউটন দেব লিটন সহ বেশ কয়েক জন। রাত প্রায় সাড়ে ১২ টার দিকে মোটর সাইকেল যোগে সুহেল আমিন, নিউটন দেব লিটন, হেলাল মিয়া সহ ৩ জন মাধবপুর থেকে রাত প্রায় আড়াইটার দিকে জগন্নাথপুর আসেন।
তবে ৮ অক্টোবর মঙ্গলবার সকাল ৬ টার দিকে নিজের বাসার সামনে নিউটন দেব লিটনের অচেতন দেহ দেখতে পান তাঁর পরিবারের লোকজন। পরে তাঁকে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে থানা পুলিশ মৃত দেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন।
এ ব্যাপারে নিউটন দেব লিটনের মা সহ তাঁর পরিবারের লোকজন বলেন, আমরা কিছুই জানি না। সকাল ৬ টার দিকে প্রতিদিনের মতো দরজা খোলে দেখি ঘরের সামনে দেয়ালের সাথে কাথ হয়ে বসা রয়েছে লিটনের অচেতন দেহ। এ সময় তাঁর বাম চোখে আঘাতের চিহৃ দেখা যায় এবং দুই চোখ দিয়ে রক্ত পড়ছিল।
সাবেক পৌর কাউন্সিলর সুহেল আমিন বলেন, রাত প্রায় আড়াইটার দিকে লিটন বাবুকে তার বাসার কাছে জনতার রেস্টেুরেন্টের সামনে নামিয়ে দিয়ে আমরা চলে যাই। পরে কি হয়েছে জানি না। তবে লিটন বাবু মদ খেয়ে ছিলেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ নাজমুল সাদাত বলেন, আমাদের কাছে আসার আগেই এ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তার বাম চোখে তেতলানো জখম রয়েছে। যে কারণে দুই চোখ দিয়ে রক্ত ঝরছিল।
মৃতদেহ উদ্ধারকারী জগন্নাথপুর থানার এসআই রাজিব রহমান বলেন, ময়না তদন্ত রির্পোট আসলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এ ঘটনায় থানায় জিডি হয়েছে। জিডির আলোকে তদন্ত চলছে। অভিযোগ পেলে মামলা নেয়া হবে।
এদিকে-মদের নেশায় নিয়ন্ত্রন হারিয়ে কোথাও পড়ে গিয়ে আঘাত পেয়ে অথবা স্ট্রোক করে নাকি অন্য কোন কারণে লিটনের মৃত্যু হয়েছে, তা নিশ্চিত ভাবে কেউ কিছু বলতে পারছেন না। যে কারণে নিউটন দেব লিটনের মৃত্যু নিয়ে নানা প্রশ্ন ও রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।