খাগড়াছড়িতে দিন দিন বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা

Monday, August 5th, 2019

মো রুবেল ,খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিনিধি  :  খাগড়াছড়িতে দিন দিন বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা।এতদিন রাজধানী ঢাকা থেকে এই রোগের বিস্তৃতি দাবি করা হলেও গত ৩১ জুলাই খাগড়াছড়িতে এক শিশু আক্রান্ত হওয়ার পর জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ঢাকা থেকে ফেরা রোগীদের পাশাপাশি স্থানীয়রা আক্রান্ত হওয়ায় প্রতিদিন খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা।

ভৌগলিক অবস্থানের দিক থেকে বাংলাদেশের তিন পার্বত্য জেলা মশাবাহিত রোগে আক্রান্তের ঝুঁকিতে রয়েছে। সম্প্রতি সময়ে দেশব্যাপী ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ায় এই ঝুঁকি আরও বেড়েছে খাগড়াছড়িতে। ২৪ জুলাই থেকে খাগড়াছড়ি জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। শুরুতে ঢাকা থেকে আক্রান্ত হলেও ৩১ জুলাই খাগড়াছড়িতে প্রথম ধরা পড়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী। এই পর্যন্ত হসপিটালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে ২৬ জন। তার মধ্যে স্থানীয় ভাবে আক্রান্ত হয়েছে কয়েকজন , আবার কয়েকজন ঢাকা থেকে আক্রান্ত হয়েছে। ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়লেও সরকারি হাসপাতালে রোগ নির্ণয়ের ব্যবস্থা না থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছে রোগীর স্বজনরা। আক্রান্ত হওয়া রোগীরা অধিকাংশ হচ্ছে জেলা শহরের পানখাইয়াপাড়া, মধুপুর, শালবন সহ আশপাশের বাসিন্দা। স্থানীয়দের অভিযোগ সুয়ারেজ ব্যবস্থায় জমা থাকা নোংরা পানি ও আবর্জনায় জন্ম নিচ্ছে ডেঙ্গুর জীবাণুবাহী মশা।

প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের অবহেলাকে দুষছেন কেউ কেউ। তবে ডেঙ্গু রোগ মোকাবেলায় কার্যকরী উদ্যোগের কথা জানালেন স্থানীয় পৌর মেয়র রফিকুল আলম। তিনি বলেন,জেলা প্রশাসক মোঃ শহিদুল ইসলাম, সিভিল সার্জন মোঃ ইদ্রিস মিয়া সহ হসপিটালে ডেঙ্গু রোগী দেখতে যাই, সেখানে গিয়ে নিশ্চিত হতে পারি খাগড়াছড়িতে স্থানীয় ভাবে ডেঙ্গু রোগ ছড়িয়ে পড়ছে। তাই মশক নিধনে ঔষধ ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যাহত থাকবে এবং যে সকল জায়গায় পানি জমাট রয়েছে সেগুলো পরিত্যাগের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়ও আগামী ৭আগস্ট সরকারি-বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠান ও সামজিক সংস্থা সমন্নয়ে সারাদেশের সাথে খাগড়াছড়িতেও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালিত হবে।

এদিকে, নিয়োমিত খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে রোগীদের খোজ-খবর নিচ্ছেন, খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসন, পৌর প্রশাসন ও সিভিল সার্জন।

সিভিল সার্জন মোঃ ইদ্রিস মিয়া বলেন, যে সকল ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে তাদের মধ্যে ৭ জন চিকিৎসকের পরামর্শে ছাড়পত্র নিয়ে হাসপাতাল ছেড়ে গেছে। বাকিরা সবাই ভালোর দিকে আছে। ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব বাড়ার আশঙ্কা থাকায় জ্বরে আক্রান্ত কাউকে রাজধানী ঢাকা কিংবা নিজ জেলা না ত্যাগের অনুরোধ জানানো হয়।