সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের ঋণের টাকা তুলতে ব্যস্ত গ্রামীণ ব্যাংক কর্মীরা

Thursday, July 11th, 2019

 

সাব্বির আহমেদ ( সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি) সুনামগঞ্জে দুই সপ্তাহের অধিক বন্যায় কবলিত মানুষের পিছু ছাড়ছে না গ্রামীণ ব্যাংকসহ অন্যান্য এনজিওগুলো। বন্যার সময় ঋণগ্রহীতাদের বাড়ির উঠানের পানি পেড়িয়ে কিস্তি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মীদের বিরুদ্ধে। এতে করে ক্ষতদরিদ্র ঋণগ্রহীতারা চরম বিপাকে পড়েছে।

সুনামগঞ্জ স্থাপিত গ্রামীণ ব্যাংকের হিসেব অনুযায়ী তাদের এরিয়ার মধ্যে প্রায় ৬০হাজারের অধিক সদস্য এবার বন্যায় পানিবন্দি হয়েছে। এসব মানুষ পানিবন্দি হলেও তাদের কাছ থেকে ঋণের টাকা আদায় বন্ধ করেনি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। সুদের হার বৃদ্ধি পাবে মর্মে ঋণ গ্রহীতাদের কাছ থেকে টাকা আদায় করেছে কর্তৃপক্ষ, ফলে নিরুপায় হয়েই বন্যার মধ্যে ধার-দেনা করে অতিকষ্টে ব্যাংকের কিস্তি দিতে হচ্ছে ঋণ গ্রহীতাদের।

সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলার ঋণগ্রহীতারা ‘ জেলা প্রতিনিধি, সাব্বির আহমেদ- কে জানান, বন্যায় কাজ না করার ফলে অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটছে বন্যাকবলিত মানুষদের। এরপরও এনজিওগুলো আমাদের কোন সাহায্য সহযোগিতা না করে উল্টো কিস্তির জন্য চাপ দিয়ে যাচ্ছে। সবচেয়ে বেশি চাপ দিচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক। তাদের নাকি এনজিও না ব্যাংক!।

বন্যায় কবলিত সদস্যদের সাথে আলাপ কালে জানা যায়, টাকা না দিলে গ্রামীণ ব্যাংকের মাঠকর্মীরা খারাপ ব্যবহার করেন আমাদের সাথে এবং গ্রামীণ ব্যাংকের মাঠকর্মীরা বলেন, বন্যা কবলিতদের কাছ থেকে টাকা না নেয়ার কোন নির্দেশনা পাইনি এবং আমাদের যোনাল স্যারের নির্দেশ কিস্তির টাকা না নিয়ে অফিসে আসা যাবে না। যদি আসেন চাকরী ছেরে বাড়িতে চলে যাবেন, আর চাকরী বাচাতে চাইলে আপনাদের ব্যাক্তিগত টাকা থেকে কিস্তি জমা দিতে হবে।

এ বিষয়ে গ্রামীণ ব্যাংকের সুনামগঞ্জ যোনের যোনাল ম্যানেজার ‘জাহাঙ্গীর আলম’ এবং যোন প্রতিনিধি ‘আতিকুর রহমান (আতিক) এর সাথে ফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে তাদের পাওয়া যায়নি।