কক্সবাজার জেলা কারাগারের অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রমাণ দুদক তদন্ত দল     

Sunday, June 16th, 2019
মোঃনুরুল হোসাইন: কক্সবাজার জেলা কারাগারে লাগামহীন অনিয়ম-দুর্নীতির সচিত্র প্রতিবেদন বিভিন্ন প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশের পর অনুসন্ধান শুরু করেছে দূর্ণীতি দমন কমিশন(দুদক)। তারই ধারাবাহিকতায় ১৬জুন(রবিবার) দুদকের একটি দল কারাগারের ভেতরে গিয়ে বিভিন্ন কাগজপত্র দেখেন এবং বন্দিদের সাথে কথা বলেন।
অনুসন্ধানের শুরুতেই নানা অনিয়ম ও দুর্ণীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে জানান দুদক কর্মকর্তারা। অনুসন্ধানের নেতৃত্ব দেন দুদকের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক হুমায়ুন কবির ও উপ-সহকারী পরিচালক মোঃ রিয়াজ উদ্দিন।
উপ-সহকারী পরিচালক মোঃ রিয়াজ উদ্দিন বলেন, ‘কাগজপত্র দেখেন এবং বন্দিদের সাথে কথা বলে অনুসন্ধানের শুরুতেই নানা অনিয়ম ও দুর্ণীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- খাবার ক্যান্টিনে নানা অনিয়ম, মেডিকেলে অধিকাংশ ইয়াবা ব্যবসায়ির অবস্থান এবং একটি নির্দিষ্ট সেলে উখিয়া-টেকনাফের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির চার ভাই ও এক আত্মীয়ের থাকা।’
জানা যায়, কক্সবাজার জেলা কারাগারে লাগামহীন অনিয়ম-দুর্নীতির ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ উঠেছে সাম্প্রতিক সময়ে । অনিয়ম-দুর্নীতির মাত্রা এমনই পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, কারাগারে আটক বন্দিদের নিকট এক কেজি গরুর কাঁচা মাংস বিক্রি করা হচ্ছে ১ হাজার ৭০০ টাকায়। সেই সঙ্গে কাঁচা মুরগির মাংস বিক্রি করা হচ্ছে কেজিপ্রতি ৬০০ টাকা করে। এত উচ্চ দামের মাংসের ক্রেতারা হচ্ছেন- আত্মসমর্পণ করা কোটিপতি কারাবন্দি ইয়াবা কারবারিরা।
কারাগারের বন্দিদের সঙ্গে পাঁচ মিনিট কথা বলতে আদায় করা হয় জনপ্রতি ১২০০ টাকা করে। এর পরবর্তী মিনিট নেয়া হয় ১০০ টাকা করে। কারাগারের ভেতর থাকা ক্যান্টিন ব্যবসায় প্রতিমাসে ৭০/৮০ লাখ টাকা লাভ হয়। এ ক্যান্টিনেই ২ টাকার শপিং ব্যাগ বিক্রি করা হয় প্রতি পিস ২০ টাকা।
সাধারণত দেশের প্রতিটি কারাগারে দুর্নীতি-অনিয়ম চলে আসলেও কক্সবাজার জেলা কারাগারের সাম্প্রতিক চিত্র ভিন্ন রকমের।
কারাগার সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রবিবার পর্যন্ত কক্সবাজার জেলা কারাগারে বন্দি রয়েছে ৪ হাজার ২৬০ জন। এসব বন্দির মধ্যে শতকরা ৭০ জন অর্থাৎ তিন হাজারেরও বেশি রয়েছেন ইয়াবা কারবারি।