ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে উপজেলা আওয়ামীলীগের মনগড়া সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঝড়

Monday, May 27th, 2019

Exif_JPEG_420

হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে সদ্যসমাপ্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের  অভিযোগ এনে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভায় দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরিক্ষিত আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের অব্যাহতি ও বহিস্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহন করায় তৃনমুল আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ  দেখা দিয়েছে।
গতকাল ২৬শে মে রবিবার বিকাল ৪ঘটিকার সময় ২নং আমগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের এক জরুরী সভায় উপজেলা আওয়ামীলীগ কর্তৃক ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতৃবৃন্দকে অব্যাহতি ও বহিস্কারের সিদ্ধান্তকে মনগড়া ও ষড়যন্ত্র মূলক উল্লেখ করে বক্তারা তীব্র ক্ষোভ, অসন্তোষ ও প্রতিবাদ জানান ।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি উমাকান্ত ভৌমিকের সভাপতিত্বে উক্ত জরুরী সভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি, মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী জননেত্রী শেখ
হাসিনার নির্দেশনার তোয়াক্কা না করেই হরিপুর উপজেলায় একটি বিশেষ মহল আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরিক্ষিত নেতৃবৃন্দকে কোনঠাসা করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে ।
তৃণমূল আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেন, বিগত উপজেলা নির্বাচনে সারাদেশে যেখানে মমতাময়ী মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বিদ্রোহী প্রার্থীদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছেন, অতীতের ভুল-ভ্রান্তি, বিভেদ ভূলে আওয়ামী লীগ কে ঐক্যবদ্ধ ও শক্তিশালী করতে  সারাদেশে বিশেষ সাংগঠনিক টিম মাঠে নামিয়েছেন সেখানে নেত্রীর নির্দেশনা ও সারাদেশের রাজনৈতিক বাস্তবতার বাইরে শুধুমাত্র হরিপুর উপজেলায় একটি বিশেষ মহলের প্ররোচনায় আওয়ামী লীগ কে দূর্বল ও দ্বিধাবিভক্ত করতে ত্যাগীদের বহিষ্কারের মহোৎসব শুরু হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে হরিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরীক্ষিত বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অবিচল সৈনিক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জনাব উমাকান্ত ভৌমিক ও সাবেক ছাত্রনেতা আওয়ামী লীগের দুর্দিনের কান্ডারী, ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অকুতোভয় সৈনিক, জামায়াত-বিএনপির আতংক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাঃ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হামিদুর রহমান চৌধুরী সহ বিভিন্ন পর্যায়ের ১১ জন নেতা কর্মীকে অব্যাহতি সহ বহিষ্কারের হঠকারী ও অগঠনতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত নেয় স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগ। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি বলেন, ছাত্র জীবন থেকে শুরু করে অদ্যাবধি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রশ্নে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশ্নে, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রশ্নে নিজের জীবনের ঝুকি নিয়ে সারাজীবন অবিচল থেকেছি সেখানে শুধুমাত্র  একটি উপজেলা নির্বাচনের বাস্তবতায় মমতাময়ী মা জননেত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক স্বয়ং বিদ্রোহী প্রাথীদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষনা সত্ত্বেও আজ ত্যাগীদের বিরুদ্ধে হরিপুর উপজেলায় একটি মহলের ষড়যন্ত্র অব্যাহত রয়েছে । তারা আজ ত্যাগীদের বহিস্কারের মহোৎসবে মেতে উঠেছে । একদিকে হাইব্রীড দ্বারা ত্যাগী আওয়ামীলীগ কর্মীদের কোনঠাসা করা হচ্ছে অন্যদিকে আওয়ামীলীগের একটি মহলের মদদে বিএনপি জামাতের দৌরাত্ন বেড়েই চলেছে।
সভায় বিভিন্ন বক্তা তীব্র অসন্তোষ ব্যক্ত করে বলেন উপজেলা নির্বাচন পরবর্তী প্রেক্ষাপটে উপজেলা আওয়ামীলীগ জাতীয় নির্বাচনের বাস্তবতা বেমালুম ভূলে গিয়ে স্হানীয় নির্বাচনে ব্যক্তিস্বার্থে জামাত বিএনপির ভোটকে ধরে রাখতে আজ জামাত বিএনপির তোষামদিতে মেতে উঠেছে । তারই অংশ হিসেবে এ উপজেলায় একদিকে   চলছে আওয়ামী লীগের ত্যাগীদের বহিস্কার ও অন্যদিকে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির তোষামদি । উপজেলা আওয়ামীলীগের  এহেন হঠকারী ব্যক্তিস্বার্থ কেন্দ্রিক সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সভা, বিক্ষোভ সমাবেশ সহ বিভিন্ন কর্মসুচী গ্রহন করে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ। এছাড়া আওয়ামীলীগের গুটিকয়েক নেতার মদদে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা স্বাধীনতা বিরোধী সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে প্রতিরোধের সিদ্বান্ত নেয় তৃনমুলের আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ । এছাড়াও জামাত বিএনপিকে মদদদাতা আওয়ামী লীগ নেতাদের চিন্হিত করে তাদের মুখোশ উন্মোচন করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আহবান জানানো হয় এ সভায়। এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ দবিরুল ইসলাম এমপির মাধ্যমে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনেরও দাবী জানান তৃনমুল আওয়ামী নেতা হামিদুর রহমান চৌধুরী, শরীফ উদ্দীন সরকার, হাসিম উদ্দীন, মকবুল হোসেন, আমিরুল ইসলাম, রামানন্দ বর্মন, সেমা প্রশাদ সিংহ, সুব্রত ভৌমিক মিলন’সহ  বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।