মেহেরপুরের গাংনীর দেবীপুরে মাওলানা মোঃআব্দুল হামিদ খান ভাসানীর ৪২তম ওরশ

Sunday, November 18th, 2018


রাকিবুল ইসলাম, মেহেরপুর প্রতিনিধি :
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামন্দী ইউনিয়নের দেবীপুরেগ্রানে পালিত হলো মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর ৪২তমওরশ মোবারক ।ওরশ মোবারকে নানা লোকের পদচারনায় যাক জমক হয়ে ওঠে এবং ভক্তদের খাওয়ার ব্যবস্হাও করা হয়।
ওরশ পরিচালনা করেন খাদেম মুনতাজ আলী।
খাদেম মুনতাজ আলী বলেন,আমরা মাওলানা ভাসানীকে শ্রদ্ধা করি আর তাঁর জন্য আমাদের এই আয়োজন। ভাসানী একজন মজলুম জননেতা ছিলেন।তাঁর আদর্শ আমাদের অনুপ্রাণিত করে।
মুনতাজ আলী আরো বলেন, আমার গুরু স্বপন মিয়া।তিনি বছর পাঁচেক আগে মারা গেছেন কিন্তু আমার সাথে তাঁর সরাসরি সাক্ষাৎ হয়।তিনি ছিলেন মাওলানা ভাসানীর শিষ্য।আমার গুরু স্বপন মিয়া যা বলেন আমি তাই করি।
মুনতাজ আলীর ভাষ্য হলো,আমরা এক অন্ধকারে ডুবে আছি অন্তরকে আলোকিত করতে হলে আমাদের ভিতর প্রবেশ করতে হবে।
মুনতাজ আলীর শিক্ষাগত যোগ্যতার কথা জিজ্ঞেস করলে বলেন, আমার কোন শিক্ষাকতা যোগ্যতা নেই।  স্ত্রীর কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন,আমার স্ত্রী বার মাস রোজা করে আর সে ২৪ ঘন্টা পর একবার খাই।
মুনতাজ আলীর গুরুর মাজার আছে সাহারবাটিতে। গুরু আজ বলেছে কতটুকু রান্না করতে হবে কি কি আয়োজন করতে হবে সব আমাকে বলেদিয়েছে। আমি গুরুর কথামত সব আয়োজন করেছি।দুপুর ৩টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রায় (১০০০)লোকজন আজ খেয়েছে।তবে তিনি আশা করেন এক বছরের মধ্যে তাকে পীরের মর্যাদা দেবে তার গুরু স্বপন মিয়া।
অনেক লোকের সমাগমে ওরশ মোবারক  হয়ে ওঠে একটি উপাসনার কেন্দ্রবিন্দু।আসলে কি এটা কোন ধর্মের কারখানা নাকি এর পিছনে অন্য কোন রহস্য আছে।চোখ রাখুন পরবর্তী অনুষ্ঠানে আরও জানানো হবে।