‘কোনো অবস্থাতেই নির্বাচন বয়কট করবে না ঐক্যফ্রন্ট’ : ড. কামাল

Saturday, November 17th, 2018

ডেক্স নিউজ: কোনো অবস্থাতেই নির্বাচন বয়কট করবে না ঐক্যফ্রন্ট, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গণে এক অনুষ্ঠানে সাফ জানিয়ে দিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বিএনপিসহ অন্যান্য শরিকদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ‘একবার নির্বাচন বয়কট করে ভুল করেছি। আমরা আর নির্বাচন বয়কট করবো না। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থেকে লড়ে যাব। একটা দলের নেত্রী সরকারের প্রধান থাকবেন, আরেক দলের নেত্রীকে সে সেন্ট্রাল জেলে রুম খালি করে বসিয়ে অপমান করা হবে এটা একদমই মেনে নেয়া যায় না।’
ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও সরকারের সমালোচনা করে ড. কামাল বলেন, ‘নির্বাচনে ওরা (আওয়ামী লীগ) যতরকম ১০ নম্বরি করার করুক, আমরা ভোট দেবো, ভোটে থাকবো। সবাই ভোট কেন্দ্রে থাকবো। আর যারা টাকা পয়সা দিয়ে এলাকায় ভোট করতে চায়, তাদের বয়কট করতে হবে।’
তিনি বলেন, সরকার প্রতিমুহূর্তে সংবিধান লঙ্ঘন করছে। সকাল, দুপুর, রাত সংবিধান লঙ্ঘন করছে। কোথায় লেখা আছে, ঘোষণা দিয়ে এমপি (সংসদ সদস্য) হওয়া যায়। এই সরকারে বেশির ভাগ এমপি বিনা ভোটে নির্বাচিত।
একই অনুষ্ঠানে জোটের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সরকার উস্কানি দিয়ে নির্বাচন ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিএনপিকে আখ্যা দেয়ার চেষ্টা করছে, সেই ফাঁদে বিএনপি বা ঐক্যফ্রন্ট পা দেবে না। নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে আবারো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড সৃষ্টির দাবি জানান জোটের নেতারা।
শনিবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গণে বেগম খালেদা জিয়া-র মুক্তি ও স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা নিয়ে মহাসমাবেশে ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, নির্বাচন নিয়ে সরকারের পাতানো ফাঁদে পা দেবে না ঐক্যফ্রন্ট।
তিনি বলেন, ‘এই নির্বাচনে যদি গণতন্ত্রকামী জনগণ বিজয়ী হতে না পারি তাহলে চিরতরে বিচার ব্যবস্থা চলে যাবে একটা দলের হাতে, গণতন্ত্র চলে যাবে একটা দলের হাতে। সেই কথাটি আমাদের সবসময় মনে রাখতে হবে। এজন্য এই নির্বাচনে আমাদের সমস্ত জনগোষ্ঠীকে এক করে মুক্তিযুদ্ধের যে অর্জন সেটাকে রক্ষা করবার জন্য জয়ী হতেই আন্দোলন করতে হবে।’
এর আগে সকালে টাঙ্গাইলের সন্তোষে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাঁর মাজার জিয়ারত ও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা। পরে নির্বাচনকে ঘিরে চলমান সংকট আন্দোলনের মাধ্যমে সমাধান সম্ভব বলে মন্তব্য করেন তারা। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জয় সুনিশ্চিত বলেও দাবি করেন তারা।