পটুয়াখালী-৪ থেকে আ’লীগের মনোনয়ন ফরম কিনলেন ৩০ প্রার্থী

Monday, November 12th, 2018

হাসানুজ্জামান অমি (পটুয়াখালী প্রতিনিধি) পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩ ভাই, এক ভাবি সহ আ’লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন ৩০ জন প্রার্থী।
শুক্র, শনি ও রবিবার দলীয় অফিস থেকে এই ৩০ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী আ’লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন বলে নিশ্চিত করেছে দলীয় সূত্র।
এদের মধ্যে অনেকেই তৃনমূলের নেতা-কর্মীদের সাথে যোগোযোগ কিংবা কোন রকম পূর্ব ঘোষনা ছাড়াই দুর্নীতির অভিযোগে বিতর্কিত এক নেতার ইন্ধনে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন, যাতে সাক্ষাতকার পর্বে তাদের সুপারিশে ওই নেতার মনোনয়ন এবারও নিশ্চিত হয়।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, পটুয়াখালী-৪ আসনে এবারের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন জেলা আ’লীগ এর সদস্য ফাতেমা আক্তার, সহ-সভাপতি মো: মহিব্বুর রহমান, উপজেলা আ’লীগ এর সাবেক সভাপতি মো: আলাউদ্দীন আহামেদ, কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক খোন্দকার শামসুল হক রেজা, আ’লীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক আবদুল্লাহ আল ইসলাম লিটন, যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিনের সহ-সভাপতি মুরসালিন আহমেদ, যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক মো: শামিম আল সাইফুল সোহাগ, কলাপাড়া উপজেলা আ’লীগের সম্পাদক এসএম রাকিবুল আহসান, সভাপতি মো: মাহবুবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: মঞ্জুরুল আলম, বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষনা পরিষদের প্রচার সম্পাদক মো: শহিদুল্লাহ ওসমানি, আ’লীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির বন ও পরিবেশ কমিটির সদস্য নিহার রঞ্জন সরকার মিল্টন, কলাপাড়া পৌর আ’লীগ সদস্য সৈয়দ মো: আকতারুজ্জামান কোক্কা, সাবেক এনএসআই পরিচালক মো: হাবিবুর রহমান মিলন, কলাপাড়া পৌর আ’লীগ সভাপতি বিপুল চন্দ্র হাওলাদার, কলাপাড়া উপজেলা আ’লীগ যুগ্ম-সম্পাদক সৈয়দ নাসির উদ্দীন, সহ-সভাপতি সুলতান মাহমুদ, সদস্য মো: ইউসুফ মিয়া, সহ-সভাপতি মো: দেলোয়ার হোসেন, বঙ্গবন্ধু প্রকৌশল পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ নাসির উদ্দীন, আ’লীহ শাহাবাগ থানা’র মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মোসা: মাহিনুর আকতার, যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ড. আরিফ বিন ইসলাম, নয়া মিয়া নয়ন, রাঙ্গাবালী উপজেলা যুবলীগ’র সভাপতি মো: হুমায়ুন তালুকদার, রাঙ্গাবালী উপজেলা আ’লীগ যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক এবিএম আবদুল মান্নান, জেলা আ’লীগ সদস্য আবদুল মোতালেব তালুকদার, রাঙ্গাবালী উপজেলা আ’লীগ সভাপতি একে সামসুদ্দিন, কলাপাড়া উপজেলা আ’লীগ সাবেক সহ-সভাপতি শহীদুল ইসলাম বিশ্বাস, ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদুল আলম, জেলা আ’লীগ কোষাধ্যক্ষ মো: দেলোয়ার হোসেন।
এদিকে দলীয় অপর একটি সূত্র জানায়, এসকল মনোনয়ন প্রত্যাশীর মধ্যে বর্তমান সাংসদ মো: মাহবুবুর রহমান ও এনএসআই সাবেক পরিচালক মো: হাবিবুর রহমান আপন ভাই।
মহিব্বুর রহমান তাদের ফুপাতো ভাই এবং ফাতেমা আক্তার মহিব্বুর রহমানের স্ত্রী।
মো: ইউসুফ মিয়া ভাগ্নে এবং মো: হুমায়ুন তালুকদার দু:সম্পর্কের মামা।
এছাড়াও সাংসদ মাহবুবুর রহমানের সাপোর্টিংয়ে যারা মনোনয়ন ফরম কিনেছেন তারা হলেন এসএম রাকিবুল আহসান, সুলতান মাহমুদ, মো: ইউসুফ মিয়া, মো: দেলোয়ার হোসেন, এবিএম আবদুল মান্নান, আবদুল মোতালেব তালুকদার, একে সামসুদ্দিন প্রমূখ।
এদিকে পটুয়াখালী-৪ আসনে ৩০জন প্রার্থী হওয়ায় সাংসদ মাহবুবুর রহমানের রাজনৈতিক অদূরদর্শিতা ও দুর্নীতিকেই দুষছেন সবাই।
কেননা দলীয় ’নৌকা’ প্রতীকে পর পর তিনবার এমপি নির্বাচিত হয়ে গত দশ বছরে দলের ত্যাগী, পরীক্ষিত ও জামাত-বিএনপি শাসনামলে মামলা-হামলার শিকার হওয়া নির্যাতিত নেতা-কর্মীদের কোন খোঁজ রাখেননি মাহবুবুর রহমান।
শুধু নিজের আত্মীয় স্বজন এবং বঙ্গবন্ধুর খুনী পরিবারের সদস্যদের নিয়ে গড়ে তোলা ক্যাডার বাহিনী নিয়ে অর্থ উপার্জনে মনোযোগী ছিলেন তিনি।
তাই কলাপাড়া-রাঙ্গাবালীর মুজিব আর্দশে অনুপ্রানিত মানুষের এখন একটাই দাবী দলীয় প্রধান জন নেত্রী শেখ হাসিনা’র ঘোষনা ’দুর্নীতিবাজ কাউকে নয়, ক্লীন, ইমেজ, জনপ্রিয়তার ভিত্তিতেই দেয়া হবে মনোনয়ন’ যেন বাস্তবায়ন হয় নৌকার মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে।