২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল

সোমবার চার জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৬

প্রকাশিতঃ মে ২৯, ২০১৮, ৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ


দেশজুড়ে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-র‍্যাব ও পুলিশের চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে সোমবার দিবাগত রাতে কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় ঠাকুরগাঁও, সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়া ও যশোরে আরও ছয়জন নিহত হয়েছেন।

পুলিশের ভাষ্য, এর মধ্য যশোরে ‘গোলাগুলি’তে দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হন। কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুজন নিহত হয়েছেন। সাতক্ষীরার কলারোয়া থেকে একজনের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত সবার পাশ থেকে অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধারের কথা বলেছে পুলিশ।
ঠাকুরগাঁও: পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হারুন (৪৫) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার পাঁচঘড়িয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, নিহত হারুনের বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার শীতলপুর গ্রামে। তিনি মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে।

পুলিশের দাবি, গোপন খবর পেয়ে সোমবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার পাঁচঘড়িয়া এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযানে যায় পুলিশ। এ সময় মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। গোলাগুলির একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ হারুনকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ১১০ বোতল ফেনসিডিল, চারটি কার্তুজের খোসা ও চারটি দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে। এ ঘটনায় পুলিশের দুই সদস্য আহত হওয়ার দাবি করেছে পুলিশ।

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের আরএমও সুব্রত কুমার সেন জানান, রাত সাড়ে তিনটার দিকে পুলিশ ওই ব্যক্তিকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালে আনার আগেই ওই ব্যক্তি মারা গিয়েছিলেন।

হরিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুহুল কুদ্দুস জানান, হারুন এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন। তাঁর নামে বিভিন্ন থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে সাতটি মামলা রয়েছে।

সাতক্ষীরা: কলারোয়া উপজেলার চিতলা এলাকার থেকে পুলিশ আনিসুর রহমান (৪২) নামের একজনের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে। রাত আড়াইটার দিকে তাকে উদ্ধার করে কলারোয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটার গান, দুটি গুলি ও ৭০টি ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। আনিসুর উপজেলার দেয়াড়া ইউপির পাকুড়িয়া গ্রামের সুরত আলীর ছেলে।

কলারোয়া থানার ওসি বিপ্লব কুমার নাথের ভাষ্য, কুশলিয়া ইউনিয়নের চিতলে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলি হচ্ছে-এমন তথ্যের ভিত্তিতে উপপরিদর্শক (এসআই) সিরাজুল মাহমুদের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। সেখানে গিয়ে পুলিশ তিনটি ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এতে বিরোধকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থলে একজন গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাঁকে দ্রুত কলারোয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তাঁর মাথায় গুলির চিহ্ন রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটার গান, দুটি গুলি ও ৭০টি ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।

ওসি জানান, আনিসুর একজন ইয়াবা ব্যবসায়ী। তার নামে কলারোয়া থানায় ১০টি মামলা রয়েছে।

যশোর: রাত তিনটার দিকে যশোর শহরের চাঁচড়া রায়পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ‘গোলাগুলি’তে দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হন। তাঁরা হলেন যশোর সদর উপজেলার মন্ডলগাতী গ্রামের জাহান আলীর ছেলে আছর আলী (৫৬) ও শহরের চাঁচড়া রায়পাড়া এলাকার সেকেন্দার আলীর ছেলে মানিক (২৬)।

যশোর কোতোয়ালি থানার এসআই মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, ‘শহরের চাঁচড়া রায়পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে দুই দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলি হচ্ছে বলে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে হাজির হয়। এ সময় মাদকদ্রব্য বিক্রেতারা পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল তল্লাশি করে দুটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে দুটি পিস্তল, দুটি গুলি, পাঁচটি গুলির খোসা ও ৬০০টি ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করা হয়।’

কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের শেহালা মাঠে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী মুকাদ্দেস আলী (৪২) ও ফজলুর রহমান ওরফে টাইটেল (৪৮) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ৩ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও বিপুল পরিমাণ মাদক উদ্ধার করেছে।

দৌলতপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজগর আলী জানান, একদল মাদক ব্যবসায়ী দৌলতপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের শেহালা মাঠে মাদক ক্রয় বিক্রয় করছে এমন গোপন সংবাদ পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশের টহল দল মঙ্গলবার রাত ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুজন মাদক ব্যবসায়ী গুলিবিদ্ধ হয়। পরে তাদের উদ্ধার করে দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক গুলিবিদ্ধদের মৃত ঘোষণা করেন।

আজগর আলী জানান, নিহত প্রত্যেকের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসা ও ছিনতাইয়ের অন্তত ৮টি করে মামলা রয়েছে। মুকাদ্দেস উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ভারতীয় সীমান্ত সংলগ্ন মুন্সিগঞ্জ গ্রামের রেজাউল ইসলামের ছেলে ও ফজলুর প্রাগপুর বাজারের মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে।

মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হওয়ার পর ১৫ দিনে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়াল ১০৭। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দাবি, নিহত ব্যক্তিদের বেশির ভাগই মাদক ব্যবসায়ী।

গতকাল রাতের বন্দুকযুদ্ধের পর দু-একটি ছাড়া প্রতিটি ঘটনাস্থল থেকেই ইয়াবা, গাঁজা, ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য, দেশি-বিদেশি অস্ত্র উদ্ধার করার হয় বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, যতক্ষণ না মাদকের ভয়াবহতা নিয়ন্ত্রণে আসবে, তত দিন পর্যন্ত এ অভিযান চলবে। এটি নিয়মিত অভিযান। মাদক নিয়ন্ত্রণ না হওয়া পর্যন্ত এই ‘যুদ্ধ’ অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT