২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল

সাদা ফুলের মাকড়িশাল

প্রকাশিতঃ জুলাই ২৮, ২০১৮, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ


দ্বিজেন শর্মা ২০০৭ সালে মাকড়িশালের একটি চারা বড়লেখা থেকে তাঁর ভাইপো বনফুল শর্মার মাধ্যমে সংগ্রহ করে ঢাকায় নিয়ে আসেন। বৃক্ষপ্রেমীদের উপস্থিতিতে সেটি রমনা পার্কে রোপণ করা হয়। গাছটি এখন অনেক বড় হয়েছে। আমরা প্রতি গ্রীষ্মে গাছটির তলায় যাই ফুলের দেখা পাবার আশায়। কিন্তু আজও তাতে ফুল ধরেনি।

সম্প্রতি সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে গেলে, টিলাগড় এলাকার কিছু গাছপালার সঙ্গে পরিচয় ঘটে। প্রথমেই দেখা পাই মাকড়িশালের। টিলার ওপর একটি গাছে অজস্র ফুল ধরেছে। তাতে মৌমাছি, ভোমরার ওড়াউড়ি। ফুল দেখতে চা ফুলের চেয়ে বড়।

এই এলাকায় ছোট-বড় প্রায় ২৫টি মাকড়িশালগাছের দেখা মিলল। কিন্তু টিলাগড় ইকোপার্কে এ গাছ বেশি নেই। টিলার অনেক অংশই ফাঁকা। কংক্রিটের ভবনও আছে কোনো কোনো টিলায়। নিকট ভবিষ্যতে এসব টিলার বুনো গাছপালা হারিয়ে যেতে পারে।

মাকড়িশাল পাহাড়ি বনের সুদর্শন বৃক্ষ। মাকড়িশালের অপর নাম বনাক। গ্রীষ্মে পুরো গাছ ফুলের থোকায় ছেয়ে যায়। গাছ প্রায় ২৫ মিটার অবধি লম্বা হয়। পাতা ডিম্বাকার বা ভল্লকার। একক বা ছোট থোকায় ফোটে ফুল। সাদা রঙের ফুল ৪-৫ সেন্টিমিটার চওড়া। মাঝখানে একগুচ্ছ হলুদ কেশর থাকে। ফুলটি সুগন্ধি।

এই গাছের গোড়ার শিকড় থেকে চারা গজায়। বীজ থেকেও গাছ হয়। কাঠ উত্তম এবং গাছের ভেষজ গুণও আছে। মাকড়িশালের বৈজ্ঞানিক নাম Schima wallachii। পরিবার থিসি। শোভাবর্ধনকারী তরু হিসেবে মানানসই।

Leave a Reply

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT