১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

লিটনকে বিজয়ী করেই ঘরে ফিরবো ইনশাল্লাহ্ রাব্বানি

প্রকাশিতঃ জুলাই ২৫, ২০১৮, ৭:৩৫ অপরাহ্ণ


আলিফ হুসেন (তানোর প্রতিনিধি) – রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) সংসদীয় আসনের নির্বাচনী এলাকায় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, মুন্ডুমালা পৌর মেয়র, একটানা তিনপ্রজন্মের জনপ্রতিনিধি, শত বছরের রাজনৈতিক ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান, তারকা খ্যাতি সম্পন্ন, কর্মী-জনবান্ধব, বর্ষিয়ান রাজনৈতিক নেতা গোলাম রাব্বানি তার অনুগত বিশাল কর্মী বাহিনী নিয়ে আসন্ন রাজশাহী সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে বিজয়ী করতে প্রচার-প্রচারণা-গণসংযোগ ও উঠান বৈঠকে ব্যস্ত সময় পার করছেন। চলতি বছরের ১৫ জুলাই রোববার থেকে তিনি তার বিশাল কর্মী বাহিনী নিয়ে রাজশাহী শহরে অবস্থান করে প্রচার-প্রচারণা করে চলেছেন। চলতি বছরের ২৪ জুলাই তিনি তার কর্মী বাহিনী নিয়ে রাজশাহীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে প্রচার-প্রচারণা করেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এ্যাডঃ মকবুল খাঁ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, মুন্ডুমালা পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান ও কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান প্রমূখ। রাব্বানি বলেন, উন্নয়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত থেকে দেশকে এগিয়ে নিতে আওয়ামী লীগের কোনো বিকল্প নাই তাই আবারো আওয়ামী লীগকে রাস্ট্রিয় ক্ষমতায় আনতে হবে পাশপাশি রাজশাহীর উন্নয়ন গতিশীল ও এগিয়ে নিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী লিটনকে বিজয়ী করতে হবে। তিনি বলেন,রাজশাহী সিটি নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে নিয়ে লিটনকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী করেই আমরা ঘরে ফিরবো ইনশাল্লাহ্। তৃণমূলের অভিমত, জননন্দিত নেতা রাব্বানির প্রচারণায় লিটনের পালে বিজয়ের হাওয়া লেগেছে।
জানা গেছে, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি. আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, সাবেক সিটি মেয়র, প্রবীণ, ত্যাগী-নিবেদিতপ্রাণ ও বর্ষিয়ান রাজনৈতিক নেতা এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে আবারো রাজশাহী সিটি মেয়র হিসেবে দেখতে চাই রাজশাহী মহানগরীর দলমত নির্বিশেষে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ। রাজশাহী মহানগরীর সাধারণের অভিমত, মহানগরীর চেকসই উন্নয়সের সঙ্গে তারা সম্পৃক্ত থাকতে চাই ও দেখতে চাই দৃশ্যমান উন্নয়ন। আর এজন্য তারা যেকোনো মূল্য এবার লিটনকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে মেয়র নির্বাচিত করে গত বারের ভূলের প্রায়শ্চিত্ত করতে চাই। দীর্ঘদিন পরে হলেও তারা বুঝতে পেরেছে রাজশাহীর টেকসই উন্নয়ন ও বদলে দিতে লিটনের কোনো বিকল্প নাই। কারণ বিএনপি দলীয় মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এক্ষেত্রে প্রায় পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। এমনকি নতুন নতুন প্রকল্প গ্রহণ বা উন্নয়ন কাজ করাতো দুরের কথা মেয়র লিটনের রেখে যাওয়া অসমাপ্ত অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পন্ন করতে ব্যর্থ হয়েছেন। এছাড়াও বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল ভোটের মাঠে ইতমধ্যে বুলবুলকে অনেক পিছিয়ে দিয়েছে। রাজশাহীবাসি মনে করেন, ইতিপূর্বে তারা লিটনকে মেয়র পদে নির্বাচিত না করে যে ভূল করেছেন,এবার তাকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী করে সেই ভূলের প্রায়শ্চিত্ত করতে চাই। এছাড়াও এবার লিটনকে বিহয়ী করতে শুধু রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ নয় রাজশাহী অঞ্চলের পুরো আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নেমেছেন পাশাপাশি আবার জাতীয় পার্টিও সমর্থন দিয়েছে। ফলে আওয়ামী লীগের বিশাল ভোট ব্যাংক ও ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগের বিপুল কর্মী বাহিনীকে কাজে লাগাতে পারলে লিটনের বিজয়ী হওয়া প্রায় নিশ্চিত। এদিকে গণসংযোগ ও প্রচার-প্রচারণায় লিটন অন্যদের থেকে অনেক এগিয়ে এবং পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামরুজ্জামান হেনার-এর সুযোগ্য পূত্র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন তাঁর বাবার দেখানো পথ থরেই রাজনীতি করে চলেছেন। দেশের প্রচলিত রাজনৈতিক ধারায় থাকলেও তিনি কখনই লোভ লালসার স্রোতে গা ভাসিয়ে দেননি। আবার অবৈধ সম্পদ অর্জনের ব্যাপক সুযোগ থাকার পরেও তিনি কখনই সেই পথে পা বাড়ায়নি। দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের অনেক উঙ্খান-পতন তিনি দেখেছেন, কিšত্ত তিনি কখনই তাঁর আদর্শ থেকে বিট্যুত হননি। এমনকি ৮০.র দশকে স্বৈরাচার এরশাদ সরকার তাকে মন্ত্রী করার প্রস্তাব দিয়েও দলে টানতে ব্যর্থ হয়েছেন। তিনি তার বাবার দেখানো পথে ও জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে রাজনীতি শুরু করেছেন এখানো সেই পথেই রয়েছেন। রাজনীতিতে অনেক ঝড়-ঝাপটা ও শত প্রতিকুলতা মোকাবেলা করে তিনি এখানো আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে চলেছেন। কোনো লোভ-লালসা তাকে তার আদর্শ থেকে বিন্দুম্ত্র বিচ্যুত করতে পারেনি। লিটন দেশে গণতন্ত্র ও জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে তিনি থেকেছেন সামনের সারিতে দিয়েছেন সফল নেতৃত্ব। দল ও জনগণের অধিকার রক্ষার তিনি একজন নিবেদিতপ্রাণ, কর্মী ও জনবান্ধব এবং পরীক্ষিত ও লড়াকু সৈনিক। প্রচলিত রাজনৈতিক ধারায় থাকলেও লোভ লালসার স্রোতে গা ভাসিয়ে দেননি। তিনি তৃণমুল নেতাকর্মীদের সঙ্গে থেকে এখনও চালিয়ে যাচ্ছেন সংগ্রাম। এই সংগ্রাম রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন সূচনার সংগ্রাম। তিনি রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগকে অর্থ নয় মেধার কাছে জিম্মি রাখতে চান। লিটন বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকারের উন্নয়ন ধারাকে এগিয়ে নিতে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে নিয়ে নিরলস ভাবে কাজ করতে চান।
জানা গেছে, রাজশাহী সিটিকর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন রাজশাহী মহানগরীর ড্রেন, গ্যাস, বিদ্যুৎ, সড়ক যোগাযোগ, পদ্মা পাড়সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে টেকসই ও অপ্রত্যাশিত দৃশ্যমান উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পন্ন করেছেন। রাজশাহী সিটিকর্পোরেশনের ইতিহাসে অনেকটা বিরল তার আগে কেউ কখনই তাঁর অর্ধেক উন্নয়ন কাজ করতে পারেননি। আর বিষয়টি তার পরাজয়ের পর রাজশাহীর সাধারণ মানুষ বুঝতে পেরেছেন। এদিকে রাজশাহী মহানগরীর উন্নয়নের স্বার্থে এবার দলমত নির্বিশেষে সাধারণ মানুষ লিটনকে মেয়র দেখার অধির অপেক্ষায় রয়েছেন বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। এব্যাপারে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, রাজশাহী মহানগরীকে তিনি বিশ্বের দরবারে মডেল নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চান। তিনি বলেন, শিল্পায়ন, কৃষি ভিত্তিক শিল্প প্রতিষ্ঠান, কুটির শিল্প স্থাপন, বেকার সমস্যার সমাধান ও সাধারণ মানুষের কর্মসংস্থন সৃষ্টির পাশপাশি রাজশাহী ডিজিটাল নগরীতে পরিনত করা হবে।

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০, সার্কুলেশন বিভাগঃ০১৯১৬০৯৯০২০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT