১৭ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শীতকাল

রূপসায় দুই কিশোর ও স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৮, ৭:১১ অপরাহ্ণ


ডেস্ক নিউজ:খুলনার রূপসা উপজেলায় পৃথক ঘটনায় দুই কিশোর ও এক স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার আলাইপুর গ্রামের আঠারোবাকী নদী থেকে মুছা শিকদার (১৫) ও দুপুর ১২টার দিকে চাঁদপুর গ্রামের শিয়ালী নদীর পার্শ্ববর্তী হোগলা বন থেকে ভ্যানচালক শামীম শেখের (১৫) মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এছাড়াও সকালে উপজেলার জয়পুর গ্রামে ফারজানা খাতুন (১২) নামে অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রী আত্মহত্যা করে। পরে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করেছে।

নিহত মুছা শিকদার রূপসা উপজেলার আলাইপুর গ্রামের মোস্তাকিন শিকদারের ছেলে, শামীম শেখ তেরখাদা উপজেলার আড়কান্দি গ্রামের মধ্যপাড়ার ভ্যানচালক ঝড়ু শেখের ছেলে এবং ফারজানা রূপসা উপজেলার জয়পুর গ্রামের ইউনুস শিকদারের মেয়ে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, রূপসা উপজেলার আলাইপুর গ্রামের মুছা শিকদার উপজেলা সদরের একটি মাদরাসায় পড়ালেখা করত। এক বছর আগে তাকে তার বাবা মোস্তাকিন শিকদার আলাইপুর গ্রামের দক্ষিণপাড়ায় বাড়ির পাশে একটি মুদি দোকান করে দেন। তারপর থেকে সে ওই দোকানে ব্যবসা করত। রাতে সে দোকানের ভেতরেই ঘুমাতো। গত বুধবার রাত ১১টার দিকে বাড়ি থেকে রাতের খাবার খেয়ে সে দোকানে ঘুমাতে যায়। এ সময় ৫/৬জন ব্যক্তি তার দোকানে যায়। বৃহস্পতিবার সকালে তার বাবা দোকানে গিয়ে তালা মারা দেখতে পান। তিনি বাড়ি থেকে আরেকটি চাবি এনে দোকান খুলে দেখেন মুছা নেই। তখন ঘটনাটি মোস্তাকিন শিকদার তার ভাইকে জানান। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে এলাকাবাসী মুছার বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে আঠারোবাকী নদীতে তার মরদেহ ভাসতে দেখেন। খবর পেয়ে রূপসা থানা পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে।

অপরদিকে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে রূপসা উপজেলার চাঁদপুর গ্রামের শিয়ালী নদীর পার্শ্ববর্তী হোগলা বন থেকে ভ্যানচালক শামীম শেখের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ ।

পুলিশ জানায়, গত ৫ সেপ্টেম্বর সকালে শামীম শেখ বাড়ি থেকে বের হয়। তারপর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় একজন কৃষক শিয়ালী নদীর হোগলা বনে ঘাস কাটতে যান। এ সময় তিনি দুর্গন্ধ পেয়ে এগিয়ে গিয়ে নদীর পাড়ে বনের মধ্যে একজনের মরদেহ মাটিতে পোতা ও পা ওপরের দিকে দেখতে পান। তার চিৎকারে এলাকাবাসী এসে মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে জানায়। দুপুর ১২টার দিকে রূপসা থানা পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে। পরে নিহত শামীমের জামা-কাপড় দেখে তার বাবা ঝড়ু শেখ ও মা সুরভী বেগম মরদেহ শনাক্ত করেন।

এছাড়াও বৃহস্পতিবার সকালে রূপসা উপজেলার জয়পুর গ্রামে ফারজানা খাতুন (১২) নামে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। নিহত ফারজানা স্থানীয় নৈহাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, জয়পুর গ্রামের ইউনুস শিকদারের সঙ্গে তার স্ত্রী সফুরা বেগমের তালাক হয়ে যাওয়ার পর ফারজানা তার মায়ের সঙ্গে বসবাস করত। ফারজানার মা সফুরা বেগম রূপসা ঘাট সংলগ্ন একটি ডকইয়ার্ডে শ্রমিকের কাজ করেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাড়ির কাজকর্ম নিয়ে সফুরা তার মেয়ে ফারজানার সঙ্গে রাগারাগি করেন। পরে তিনি কাজের উদ্দেশ্যে ডকইয়ার্ডে চলে গেলে ফারজানা ঘরের আড়ার সঙ্গে নিজের ওড়না বেঁধে গলায় ফাঁস দেয়। প্রতিবেশীরা টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, রূপসা থানার দুটি পৃথক স্থান থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়াও এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে মুছাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তবে কী কারণে বা কারা তাকে হত্যা করেছে তা এখনো জানা যায়নি। হত্যাকাণ্ডের কারণ ও জড়িতদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হচ্ছে। অপরদিকে নিহত শামীম শেখের মরদেহ পচে হাড়-গোড় শরীর থেকে বেরিয়ে গেছে। হত্যাকাণ্ডসহ তিন ঘটনারই তদন্ত করা হচ্ছে। এসব ঘটনায় রূপসা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০, সার্কুলেশন বিভাগঃ০১৯১৬০৯৯০২০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT