১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

রাজশাহীতে ফের আলোচনায় রাব্বানি

প্রকাশিতঃ আগস্ট ১৩, ২০১৮, ৭:২২ অপরাহ্ণ


আলিফ হুসেন (তানোর প্রতিনিধি) – রাজশাহীর রাজনৈতিক অঙ্গনে আবারো আলোচনায় উঠেছে এসেছে রাজশাহী-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌর মেয়র গোলাম রাব্বানির নাম। রাব্বানিবিরোধীরা রাজনৈতিক অঙ্গনে তাকে নিয়ে আলোচনা কোনো কিছু দিয়ে থামাতে পারছে না এবারো বুমেরাং হয়েছে। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী, প্রায় শত বছরের রাজনৈতিক ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান, তিনপ্রজন্মের জনপ্রতিনিধি, তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, মুন্ডুমালা পৌর মেয়র, তারকা খ্যাতি সম্পন্ন, কর্মী-জনবান্ধব ও পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজের তরুণ এবং আদর্শিক রাজনৈতিক নেতা গোলাম রাব্বানি বার বার রাজশাহীর রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনায় উঠে এসেছে। সম্প্রতি কিছু গণমাধ্যমে রাব্বানির বিরুদ্ধে ভিজিএফ চাল আতœসাতের অভিযোগে খবর প্রকাশ হওয়ায় এই আলোচনার সূত্রপাত হয়েছে। আর রাব্বানিবিরোধীরা এসব কাগজ নিয়ে এমনভাবে আনন্দ-উল্লাসে মাতোয়ারা যেনো তারা বিশ্বজয় করেছে। ফলে সাধারণের প্রশ্ন যদি এসব বগি কাগজের খবরে রাব্বানি চাল চুর হয় তাহলে প্রথম আলো পত্রিকায় প্রধান শিরোনামে প্রকাশিত সেই আলোচিত খবরে সাধারণ মানুষের কাছে কি প্রমাণ হবে-?।
জানা গেছে, গোলাম রাব্বানি পৌরসভার কাজে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে ঢাকায় অবস্থান করছেন। এঠাড়াও তিনি মেয়র নির্বাচিত হবার পর থেকে পৌরসভায় ভিজিএফ-ভিজিডি,টিআর-কাবিখা ইত্যাদি বিলি-বন্টনে কখানো কোনো দায়িত্ব না নিয়ে প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলরদের মাধ্যমে করে আসছেন। তাহলে ভিজিএফ চাল বিতরণের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা এলো কি ভাবে। আবার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করে আওয়ামী লীগের পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে আওয়ামী লীগের উন্নয়ন ও অর্জন সাধারণ মানুষের মধ্যে তুলে ধরার পাশাপাশি এলাকার মসজিদ-মাদরাসা, মন্দির-গীর্জা, খেলাধূলা,ইসলামি জালসা ও হরিবাসর ইত্যাদির উন্নয়নে কোটি কোটি টাকা নগদ অর্থ অনুদান হিসেবে দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার প্রতিক নৌকায় ভোট প্রার্থনা করে চলেছেন। আবার ব্রিটিশ আমল থেকে দাদা, বাবা হয়ে তিনি বংশপরম্পরায় প্রায় শত বছরের রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান ও তিপ্রজন্মের নির্বাচিত জনপ্রতিনিথি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এখানো তার বাড়িতে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষের খাবার দেয়া হয় যেটা তাদের চিরচারিত পারিবারিক ঐতিহ্য। দীর্ঘ এই রাজনৈতিক জীবনে মাহাম পরিবারের কোনো সদস্যর বিরুদ্ধে অনিয়ম-দূর্নীতি, নিয়োগ বাণিজ্য-টেন্ডারবাজি ইত্যাদি বিষয়ে কোনো অভিযোগ উঠেনি।
রাজশাহী তথা বৃহত্তর বরেন্দ্র অঞ্চলের অন্যতম রাজনৈতিক সচেতন ও সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে গোলাম রাব্বানির জন্ম এবং বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী। ব্রিটিশ আমল থেকে এখানো গোলাম রাব্বানির পরিবারের কেউ না কেউ জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। গোলাম রাব্বানির দাদা প্রয়াত হাজী কবির উদ্দীন মন্ডল পঞ্চায়েত প্রধান ও ইউপি প্রেসিডেন্ট হিসেবে এক টানা প্রায় ৩৫ বছর নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার হাত ধরেই তার পুত্র প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মোহাম্মদ আলী মাহাম পাচন্দর ইউপির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ও ৭৫ থেকে ৯২ সাল পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও দীর্ঘ প্রায় ১২ বছর রিলিফ কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি প্রায় সাড়ে ৮ একর সম্পত্তি দান করে ফুটবল মাঠ তৈরী ও সাড়ে ৩ একর সম্পত্তি দান করে সেখানে একটি প্রাথমিক ও একটি উচ্চ বিদ্যালয় স্থাপন করেছেন। আবার কলমা ইউপির কন্দপুরে তিন একর জমি দান করে কন্দপুর স্কুল নির্মাণ করেছেন। তার হাত ধরেই তার সুযোগ্য পুত্র গোলাম রাব্বানী দু’বার পাচন্দর ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন এবং পরবর্তীতে দু’বার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয়ে এখানো দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। তিনিও প্রায় সাড়ে ৩ একর সম্পত্তি দান করে সেখানে প্রকাশ আদর্শ গ্রাম করেছেন। যে রাজনৈতিক নেতার এতা আর্জন এতো জনপ্রিয়তা সেই নেতা ভিজিএফ চাল আতœসাত করবে এমন কথা তো কোনো পাগলেও বিশ্বাষ করবে না। তাহলে কোনো সংসদ নির্বাচনের আগে এমন অভিযোগ উঠলো তথ্যানুসন্ধানে চাঞ্চল্যর তথ্য এসেছে। একটি বিশেষ মহল রাব্বানির জনপ্রিয়তায় হতাশাগ্রন্ত হয়ে তাকে সাধারণ মানুষের কাছে বির্তকিত করতে দীর্ঘদিন ধরে নানা তৎপরাতা করে চলেছে। কিšত্ত রাব্বানির জনপ্রিয়তার কাছে বার বার হার মানতে হয়েছে এবারো ব্যতিক্রম হয়নি। সাধারণ মানুষের দাবি আর যাইহোক মাহাম পরিবারের কোনো সদস্য ভিজিএফ চাল আতœসাৎ করবে এটা হতে পারে না এটা একটি বিশেষ মহলের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র। তারা বলছে, রাব্বানি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র তাহলে তো তিনি প্ররাক্ষভাবে জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধি, তাহলে যারা তাকে বির্তকিত করতে এসব করছে তারা তো পরোক্ষভাবে জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরোধীতা করছে তাই নয় কি-?। এছাড়াও বিএনপির সময় তথা কথিত ক্লিনহার্ট অপারেশন ও ওয়ানইলেভেন সরকারের সময়ে অনেক রাজনীতির অনেক রথী-মহারথী আতœগোপণ করেছেন কিšত্ত রাব্বানি তখানো বীরদর্পে রাজনীতির মাঠ চষে বেড়িয়েছেন এর পরেও কি মনে হয় এই লোকটি ভিজিএফ চাল আতœসাত করেছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে গেলাম রাব্বানি বলেন, তিনি জনগণের নেতা এর বিচার তিনি জনগণের ওপর ছেড়ে দিয়েছেন, এখন আর কেউ বোকা নেই জনগণ এর সঠিক বিচার করবে বা জবাব দিবেন।তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি
রাজশাহীর রাজনৈতিক অঙ্গনে আবারো আলোচনায় উঠেছে এসেছে রাজশাহী-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌর মেয়র গোলাম রাব্বানির নাম। রাব্বানিবিরোধীরা রাজনৈতিক অঙ্গনে তাকে নিয়ে আলোচনা কোনো কিছু দিয়ে থামাতে পারছে না এবারো বুমেরাং হয়েছে। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী, প্রায় শত বছরের রাজনৈতিক ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান, তিনপ্রজন্মের জনপ্রতিনিধি, তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, মুন্ডুমালা পৌর মেয়র, তারকা খ্যাতি সম্পন্ন, কর্মী-জনবান্ধব ও পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজের তরুণ এবং আদর্শিক রাজনৈতিক নেতা গোলাম রাব্বানি বার বার রাজশাহীর রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনায় উঠে এসেছে। সম্প্রতি কিছু গণমাধ্যমে রাব্বানির বিরুদ্ধে ভিজিএফ চাল আতœসাতের অভিযোগে খবর প্রকাশ হওয়ায় এই আলোচনার সূত্রপাত হয়েছে। আর রাব্বানিবিরোধীরা এসব কাগজ নিয়ে এমনভাবে আনন্দ-উল্লাসে মাতোয়ারা যেনো তারা বিশ্বজয় করেছে। ফলে সাধারণের প্রশ্ন যদি এসব বগি কাগজের খবরে রাব্বানি চাল চুর হয় তাহলে প্রথম আলো পত্রিকায় প্রধান শিরোনামে প্রকাশিত সেই আলোচিত খবরে সাধারণ মানুষের কাছে কি প্রমাণ হবে-?।
জানা গেছে, গোলাম রাব্বানি পৌরসভার কাজে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে ঢাকায় অবস্থান করছেন। এঠাড়াও তিনি মেয়র নির্বাচিত হবার পর থেকে পৌরসভায় ভিজিএফ-ভিজিডি,টিআর-কাবিখা ইত্যাদি বিলি-বন্টনে কখানো কোনো দায়িত্ব না নিয়ে প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলরদের মাধ্যমে করে আসছেন। তাহলে ভিজিএফ চাল বিতরণের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা এলো কি ভাবে। আবার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করে আওয়ামী লীগের পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে আওয়ামী লীগের উন্নয়ন ও অর্জন সাধারণ মানুষের মধ্যে তুলে ধরার পাশাপাশি এলাকার মসজিদ-মাদরাসা, মন্দির-গীর্জা, খেলাধূলা,ইসলামি জালসা ও হরিবাসর ইত্যাদির উন্নয়নে কোটি কোটি টাকা নগদ অর্থ অনুদান হিসেবে দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার প্রতিক নৌকায় ভোট প্রার্থনা করে চলেছেন। আবার ব্রিটিশ আমল থেকে দাদা, বাবা হয়ে তিনি বংশপরম্পরায় প্রায় শত বছরের রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান ও তিপ্রজন্মের নির্বাচিত জনপ্রতিনিথি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এখানো তার বাড়িতে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষের খাবার দেয়া হয় যেটা তাদের চিরচারিত পারিবারিক ঐতিহ্য। দীর্ঘ এই রাজনৈতিক জীবনে মাহাম পরিবারের কোনো সদস্যর বিরুদ্ধে অনিয়ম-দূর্নীতি, নিয়োগ বাণিজ্য-টেন্ডারবাজি ইত্যাদি বিষয়ে কোনো অভিযোগ উঠেনি।
রাজশাহী তথা বৃহত্তর বরেন্দ্র অঞ্চলের অন্যতম রাজনৈতিক সচেতন ও সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে গোলাম রাব্বানির জন্ম এবং বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী। ব্রিটিশ আমল থেকে এখানো গোলাম রাব্বানির পরিবারের কেউ না কেউ জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। গোলাম রাব্বানির দাদা প্রয়াত হাজী কবির উদ্দীন মন্ডল পঞ্চায়েত প্রধান ও ইউপি প্রেসিডেন্ট হিসেবে এক টানা প্রায় ৩৫ বছর নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার হাত ধরেই তার পুত্র প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মোহাম্মদ আলী মাহাম পাচন্দর ইউপির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ও ৭৫ থেকে ৯২ সাল পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও দীর্ঘ প্রায় ১২ বছর রিলিফ কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি প্রায় সাড়ে ৮ একর সম্পত্তি দান করে ফুটবল মাঠ তৈরী ও সাড়ে ৩ একর সম্পত্তি দান করে সেখানে একটি প্রাথমিক ও একটি উচ্চ বিদ্যালয় স্থাপন করেছেন। আবার কলমা ইউপির কন্দপুরে তিন একর জমি দান করে কন্দপুর স্কুল নির্মাণ করেছেন। তার হাত ধরেই তার সুযোগ্য পুত্র গোলাম রাব্বানী দু’বার পাচন্দর ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন এবং পরবর্তীতে দু’বার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয়ে এখানো দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। তিনিও প্রায় সাড়ে ৩ একর সম্পত্তি দান করে সেখানে প্রকাশ আদর্শ গ্রাম করেছেন। যে রাজনৈতিক নেতার এতা আর্জন এতো জনপ্রিয়তা সেই নেতা ভিজিএফ চাল আতœসাত করবে এমন কথা তো কোনো পাগলেও বিশ্বাষ করবে না। তাহলে কোনো সংসদ নির্বাচনের আগে এমন অভিযোগ উঠলো তথ্যানুসন্ধানে চাঞ্চল্যর তথ্য এসেছে। একটি বিশেষ মহল রাব্বানির জনপ্রিয়তায় হতাশাগ্রন্ত হয়ে তাকে সাধারণ মানুষের কাছে বির্তকিত করতে দীর্ঘদিন ধরে নানা তৎপরাতা করে চলেছে। কিšত্ত রাব্বানির জনপ্রিয়তার কাছে বার বার হার মানতে হয়েছে এবারো ব্যতিক্রম হয়নি। সাধারণ মানুষের দাবি আর যাইহোক মাহাম পরিবারের কোনো সদস্য ভিজিএফ চাল আতœসাৎ করবে এটা হতে পারে না এটা একটি বিশেষ মহলের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র। তারা বলছে, রাব্বানি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র তাহলে তো তিনি প্ররাক্ষভাবে জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধি, তাহলে যারা তাকে বির্তকিত করতে এসব করছে তারা তো পরোক্ষভাবে জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরোধীতা করছে তাই নয় কি-?। এছাড়াও বিএনপির সময় তথা কথিত ক্লিনহার্ট অপারেশন ও ওয়ানইলেভেন সরকারের সময়ে অনেক রাজনীতির অনেক রথী-মহারথী আতœগোপণ করেছেন কিšত্ত রাব্বানি তখানো বীরদর্পে রাজনীতির মাঠ চষে বেড়িয়েছেন এর পরেও কি মনে হয় এই লোকটি ভিজিএফ চাল আতœসাত করেছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে গেলাম রাব্বানি বলেন, তিনি জনগণের নেতা এর বিচার তিনি জনগণের ওপর ছেড়ে দিয়েছেন, এখন আর কেউ বোকা নেই জনগণ এর সঠিক বিচার করবে বা জবাব দিবেন।

Leave a Reply

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০, সার্কুলেশন বিভাগঃ০১৯১৬০৯৯০২০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT