২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল

বিএডিসির সুনাম ক্ষুন্নকারী প্রতারক চক্রের সদস্যরা এখনও প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে!

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮, ১১:৫৫ পূর্বাহ্ণ


বরগুনা প্রতিনিধি – কৃষকের বীজ ধান নিয়ে প্রতারনা করা ও বিএডিসির সুনাম ক্ষুন্নকারী সঙ্গবদ্ধ প্রতারক চক্রের সদস্যরা এখনও প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। উপকূলীয় দু”জেলা বরগুনার তালতলী উপজেলায় ও পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার মহিপুর এবং কুয়াকাটায় বীজ ধানের কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করে বিএডিসির দেয়া সঠিক বীজ না দিয়ে ভেজাল ও স্থানীয় বীজ প্যাকেট করে বরগুনা ও পটুয়াখালী দুই জেলার প্রায় সহ শ্রাধিক কৃষকের সর্বনাশ করার ঘটনায় অভিযুক্ত ডিলার কচু পাত্রা বাজারের মেসার্স বিসমিল্লাহ ট্রেডার্সের মালিক আবু বাহিনীর প্রধান প্রতারক আবুমিয়া (৩৮) ও উক্ত সঙ্গবদ্ধ প্রতারক চক্রের সদস্য আবুর ভাই জয়নাল (৪২), ভাতিজা কাইয়ুম (২২), মামা চান মিয়া (৪৩), মামাতো ভাই ইব্রাহিম (২৫), আবুর স্ব- স্ত্রী (৩০), ও তার মামী চান মিয়ার স্ত্রী খাদিজা বেগম (৩৯), মামাতো ভাই ইব্রাহিম মৃধার স্ত্রী ফতেমা বেগম (২২) ও এর সাথে জরিত অসাধু কর্মচারী সহ প্রতারক চক্রের সদস্যরা এখনও প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে।
সরেজমিনে জানাগেছে, বরগুনার তালতলী উপজেলার ৪নং শারিকখালী ইউনিয়নের কচুপাত্রা গ্রামের মৃতু সেকান্দার আলীহাং এর ছোট ছেলে আবু বাহিনীর প্রধান প্রতারক আবুমিয়া তার নিজের ক্ষেতে নোধান শুকিয়ে পরিকল্পিতভাবে গুদামে রেখে দিয়ে ও যশোর থেকে রাতেরআধারে ট্রাক ভর্তি ধান এনে দোকানের পিছনে বসে আবুর স্ব-স্ত্রী ও তার মামী চানমিয়ার স্ত্রী দারা কুলা দিয়ে ঝেড়ে পরিস্কার করে প্যাকেট করে সরলমনা কৃষকদের মাঝে চরা মূল্যে বিক্রি করে এ ভাবে প্রতারনা করে বলে উপস্থিত স্থানীয় রাজানায়।
সরেজমিনে আরও জানা যায়, প্রতারকআবুমিয়াচলতিআমন মৌসুমেউপজেলা কৃষিঅফিসেরকিছুঅসাধুকর্মচারীদেরসহযোগীতায় ও বিএডিসিরঅসাধুকর্মচারীদের যোগসাযোসেবীজের বস্তা সেলাইকরা মেশিনসহছিলমারাখালি বস্তা সংগ্রহকরেকচুপাত্রাবাজারেআবুলমার্কেটএরপিছনে ও দোতালায়বসে লোকালধান বস্তা ভরে মেশিনদিয়ে সেলাইকরেপ্যাকেটকরে। কখনোকখনোআবারসুযোগবুঝেকচুপাত্রাবটতলা সোনালীমসজিদেরপাশেঅবুরনিজবাড়িতেবসেপ্যাকেটকরেএবংপ্যাকেটেরগায়েধানেরজাতেরনামওভাররাইটিংকরে ব্রি ২৮ কেটে ব্রি ২৩ ধানলিখে, প্যাকিংএরতারিখ ২ অক্টোবর ২০১৬ কে ওভাররাইটিংকরে ২ অক্টোবর ২০১৮ করেউপজেলারএকমাত্রডিলারআবুলতারমামাচানমিয়ারটমটমেকরে ও মামাতোভাইইব্রাহিম মৃধারঅটোতেকরেবহনকরেতালতলীউপজেলারবিভিন্নবাজারে ও পার্শবর্তী জেলাপটুয়াখালীরকলাপাড়াউপজেলারমহিপুর থানারবিভিন্ন স্থানেঅন-অনুমোদিতখুচরাবীজ বিক্রেতাদ্বারাহাজারো কৃষকদেরমাঝেবিএডিসিরসঠিকবীজনাদিয়েআবুতারনিজেরপ্যাকেটকরা বোর মৌসুমের স্থানীয় ও যশোরের খোলাবাজার থেকে আনানিম্নমানেরবীজপ্রতারোনারমাধ্যমে বিতরনকরে কৌশলে লক্ষ লক্ষ টাকাহাতিয়েনিয়েযায়। যশোর থেকে আনাবীজগুলো যে সকল কৃষকদেরমাঝেবিক্রি করাহয়েছিলঅপরিপক্ক অবস্থায় সে সকলবীজেফলনআসায় কৃষকদেরমাঝে হৈচৈশুরু হয়।
স্থানীয়রাআরওজানান, বিএডিসিরপ্যাকেটজাতধানেরবীজেরপ্যাকেটেজাতপরিবর্তনকরে, কাটা ছেড়াকরে মেয়াদ উত্তীর্ণ, অন্যজাতের স্থানীয়বীজধানপ্যাকেটেভরে কৃষকেরসর্বনাশকরাসহবিভিন্নঅনিয়মেরঅভিযোগচিহ্নিতহওয়া পরও প্রশাসন উক্ত প্রতারক চক্রেরবিরুদ্ধে দ্রুতআইনানুগব্যাবস্থা নানিলেপ্রকৃত কৃষকদেরবিএডিসিরপ্রতিআস্থাকমেআসবেবলেঅভিজ্ঞমহলেরধারনা।
খোঁজনিয়েআরওজানাযায়, আবুরবিরুদ্ধে এলাকায়এধরনেরঅভিযোগেরআর শেষ নেই। অন্যের অর্থ সম্পদ লুট-পাট, সরকারীজমি দখল, পাবলিকটয়লেটভাংচুরসহতারবিরুদ্ধে রয়েছেনানাঅভিযোগ। তালতলীতেআবুবাহিনীতান্ডব! শিরোনামেজাতীয় দৈনিকযুগান্তরসহবিভিন্ন দৈনিকপত্রিকায়তারবিরুদ্ধে ইতি পূর্বে একাধিকরিপোর্ট প্রকাশিতহয়েছে। শুধুভয়েআবুবাহিনীরপ্রধানআবু ও তার লোকদেরবিরুদ্ধে স্থানীয় লোকমুখখুলতেসাহসপায়নাকারনউপকূলীয়অঞ্চলজুড়েএররয়েছেবিশালগ্যাং, যারফলে এ চক্রেরকাছে স্থানীয় লোকঅসহায়।
তালতলীর স্থানীয়কচুপাত্রাবাজারেএভাবেএকটিনকলবীজকারখানার খবর সে সময়বীজবহনকারীটমটম,অটোচালক ও কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট শ্রমিকদেরকাছ থেকে সর্ব প্রথমপ্রকাশপায়। ঘটনাটিতখন লোকমুখেব্যাপকজানাজানিহলেআবুবাজারেতার ঘর থেকে ধানসড়িয়েতারবাড়িরপাশেমামাতোভাইইব্রাহিম মৃধারঘরেলুকিয়ে রেখে সেখান থেকে বস্তা ভরে সেলাইকরেপ্যাকেটকরে। ঐ সময়ে স্থানীয় কৃষিঅফিসের লোকজনএসেবিষয়টিরসত্যতা পেয়েলাইসেন্সবাতিলকরে দেওয়ারজন্য ব্যাপকচাপ প্রয়োগকরে। তখনআপায়উপায়না পেয়েমুচলেকারমাধ্যমে সংশ্লিষ্টকর্তপক্ষের সাথে আবুরআপোশহয়েছেবলেজানাগেলেও সে সময়উদ্ধতন কর্তৃপক্ষ বিষয়টি জোড়ালেভাবেআমলে নেয়নি, যারফলেআজহাজারো কৃষকেরসর্বনাশ। কয়েকএকর কৃষিজমিঅনাবাদী থাকার আশংঙ্কা।
এ ব্যাপারেদ্বায়িত্ব প্রাপ্তউপজেলা কৃষিকর্মকর্তাজানান, ক্ষতিরশিকার কৃষকের ক্ষতিপুষিয়ে নেয়ারজন্য সব ধরনেরব্যবস্থা নেয়াহবে। সরেজমিনেযানাযায়, কোন কোন কৃষকের ১০ থেকে ১৫ বিঘাপর্যন্ত কারওতার চেয়েও বেশিজমিরবীজঅপ্রাপ্ত অবস্থায়ফলে গেছে। এমতবস্থায় কৃষিঅফিসবীজেরচারাদিচ্ছে ১ বিঘাজমির শেষ সময়েবীজের চরম সংকট থাকারকারনেঅনেক কৃষিজমিঅনাবাদী থাকার আশংঙ্কা।
এতে আগামীআমন মৌসুমেবরগুনা ও পার্শবর্তীপটুয়াখালী জেলাসহতালতলীউপজেলারপ্রায়কয়েকহাজারএকরজমিতেআমনফসলনাপাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কৃষকরাতাদের ক্ষতি পোশনোরজন্য সরকারেরসার্বিকসহযোগীতাসহ উক্ত সঙ্গবদ্ধ প্রতারক চক্রকে আইনেরআওতায়এনেপ্রশাসনেরকাছেএরসঠিকবিচারের দাবী জানান।

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT