১৮ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শীতকাল

‘পুলিশ আমার বুকের মানিক উদ্ধার করেছে’

প্রকাশিতঃ আগস্ট ৩০, ২০১৮, ৭:২২ অপরাহ্ণ


‘আমি এই প্রথম পুলিশের কাছে গেছি। গত ২৮টি ঘণ্টা উদ্বিগ্ন ছিলাম। ছেলে নিখোঁজের পর থেকে নাওয়া-খাওয়া সব বাদ হয়ে গেছিলো। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী আমার সোনা বাবুকে উদ্ধার করে দিয়েছে। পুলিশের কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ।’ কান্না জড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন অপহৃত শিশু তোয়াছিনের বাবা সাইফুল ইসলাম।

রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় বাসার সামনে খেলছিল তোয়াছিন ইসলাম সিমন। সে সময় বাবা সাইফুল ইসলামের প্রতিবেশী রোমান কৌশলে সিমনকে তুলে নিয়ে যায়। এরপর অপহরণের নাটক সাজায়। রোমান নিজে নিখোঁজের খবর ছড়াতে মাইকিং করে তেজগাঁও এলাকায়।

অপহরণের পর মুক্তিপণ বাবদ যে নম্বরটি ব্যবহার করা হয় সেটির সূত্র ধরেই শনাক্ত করা হয় রোমানকে। এরপর রোমান ও তার স্ত্রীসহ ছয়জনকে আটক এবং অপহৃত শিশু সিমনকে উদ্ধার করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলেন ধরে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) বিপ্লব কুমার সরকার।

তিনি বলেন, গত ২৮ আগস্ট আনুমানিক রাত পৌনে ৯টার দিকে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চলের লিচু বাগান এলাকার ৩৪১/১ বাসা থেকে অপহৃত হয় সিমন। ওই রাতেই নিখোঁজ শিশুটির সন্ধান চেয়ে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন বাবা সাইফুল ইসলাম। এরপর তদন্ত শুরু করে পুলিশ।

পরদিন (বুধবার) দুপুর ২টার দিকে একটি অপরিচিত নম্বর থেকে জানানো হয়, সিমন তাদের জিম্মায়। অপহরণ বাবদ ২০ লাখ টাকা দেয়ার কথা বলা হয়। ১০ লাখ টাকায় সমঝোতাও হয়। বিষয়টি পুলিশ অবহিত হবার পর ওই নম্বর ধরে অভিযান শুরু হয়।

বুধবার মধ্যরাতে বিজয় সরণির পিরমা মসজিদের গলির পাশেই খোলা মাঠ থেকে ওই শিশুকে উদ্ধার করা হয়। ২ জনকে আটকও করা হয়। তাদের দেয়া তথ্য মতে মোহাম্মদপুর, শেরেবাংলা নগর ও মহাখালী এলাকা থেকে আরও চারজনকে আটক করা হয়।

Leave a Reply

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০, সার্কুলেশন বিভাগঃ০১৯১৬০৯৯০২০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT