১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, হেমন্তকাল

ছাত্রলীগ নেতাদের চাকরির দাবিতে চবির শাটল ট্রেন বন্ধ

প্রকাশিতঃ মে ২৩, ২০১৮, ৬:৩৭ অপরাহ্ণ


আগামী ৩১মে আসন্ন সিন্ডিকেট সভাকে কেন্দ্র করে এবং সাবেক ছাত্রলীগ নেতাসহ ১৩ জনের বিভিন্ন পদে চাকরির দাবিতে শাটল ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী’ ব্যানারধারী কয়েকজন।

বুধবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী এ অভিযোগ করেন।

এদিকে মঙ্গলবার রাত সাড়ে আটটা থেকে বুধবার পর্যন্ত বিশ্বাবদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে কোন ট্রেন ছেড়ে আসেনি। যার ফলে বিশ্ববিদ্যালয় অচল হয়ে পড়েছে। এতে দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে হাজারো শিক্ষার্থীদের।

তিনি সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, গত মঙ্গলবার ছাত্রলীগের সাবেক নেতা রাকিব হোসাইন ও তার বোন রেজোয়ানা বেনজির বন্যাসহ ১৩ জনের একটি লিষ্ট নিয়ে আসে তারা। এ সময় তাদের বিভিন্ন দাবি আদায়ের কথা বলে এবং তাদের দাবি পূরণ না হলে ক্যাম্পাস অচল করে দিবে বলে উপাচার্যকে হুমকিও দিতে থাকে।

পরবর্তীতে এক পর্যায়ে তারা বলেন, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এর সুপারিশকর্মে এই দাবি। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন ছাত্রলীগের কমিটি না থাকা সত্ত্বেও কারো কোন স্বাক্ষর না নিয়ে ছাত্রলীগের প্যাড ব্যবহার করে এ আবেদন করে।

মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী বলেন, উপাচার্য তাদের এ অযোক্তিক দাবি মেনে না নেওয়ায় ও গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে ষোলশহর স্টেশন থেকে আলী রিয়াজকে তুলে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ষোলশহর স্টেশন সংলগ্ন ফরেস্ট গেট এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় ভোগা লোকোমাস্টাররা বিশ্ববিদ্যালয় রুটে ট্রেন চালাবেন না বলে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন। যার ফলে গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে আটটার ট্রেন থেকে বুধবার পর্যন্ত বিশ্বাবদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে কোন ট্রেন ছেড়ে যায়নি। তবে ট্রেন চলাচলের স্বাভাবিকতার জন্য রেলওয়ে কর্মকর্তাকে অনুরোধ করা হয়েছে।

এ দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশনজট নিরসন, ট্রেনে বগি বৃদ্ধি, প্রশাসনে জামায়াত-শিবিরের নিয়োগ বন্ধসহ আট দফা দাবিতে ২৩ মে থেকে বিশ্ববিদ্যালয় অবরোধের ঘোষণা দিয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ ঘোষণা দেয়া হয়। এতে মামুনুর রশীদ মামুন নামে এক শিক্ষার্থীর স্বাক্ষর রয়েছে। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে অবরোধের ঘোষণা দেয়া হলেও এতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের একটি অংশের জোরালো সমর্থন রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, আগামী ৩১ মে আসন্ন সিন্ডিকেট সভাকে কেন্দ্র করে প্রশাসনকে চাপে ফেলে নিজেদের দাবি দাওয়া আদায় করতেই রমজান মাসে এ আকস্মিক অবরোধের ডাক।

লোকোমাস্টারকে আটকের বিষয়ে নিশ্চিত করে ষোলশহর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার শাহাব উদ্দিন বলেন, রাতে পৌনে ৮টার ক্যাম্পাসগামী ট্রেনটি ষোলশহর স্টেশন ছাড়ার আগ মুহূর্তে একদল দুর্বৃত্ত লোকোমাস্টার আলী রিয়াজকে ধরে নিয়ে যায়। তার কাছে ট্রেনের চাবি ছিল। ফলে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

চট্টগ্রাম রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় ব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, লোকোমাস্টাররা নিরপত্তাহীনতায় ট্রেন চালাবেন না বলে জানিয়েছেন। নিরাপত্তার জন্যে রেলওয়ে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীকেও অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু দুর্বৃত্তরা সংখ্যায় অনেক ও অস্ত্রধারী। তাদের সঙ্গে কি করে পারবে ওরা?

ট্রেন অবরোধকারীদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নিবেন কিনা এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বলেন, যারা ট্রেন চলাচল বন্ধ করেছে তারা সবাই বহিরাগত। যার কারণে আমরা কোন ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছি না। তবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে যেসব সন্ত্রাসী ট্রেন চলাচলে বাধা দিবে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা ও আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে।

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০, সার্কুলেশন বিভাগঃ০১৯১৬০৯৯০২০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT