২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল

চার পণ্যের দাম চড়া

প্রকাশিতঃ জুলাই ২৮, ২০১৮, ১১:১০ পূর্বাহ্ণ


রাজধানীর কাঁচাবাজারে চারটি পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। এখন বাজারে গেলে এক ডজন ফার্মের মুরগির ডিম কিনতে ক্রেতাকে বাড়তি ব্যয় করতে হবে প্রায় ২০ টাকা। বেড়েছে ব্রয়লার মুরগি, পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচের দামও।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, চারটি পণ্যের দামই বেড়েছে সরবরাহে টান পড়ার কারণে। টানা বৃষ্টি শেষ হলে দর কিছুটা কমতে পারে।

ডিমের দাম সাম্প্রতিক কালের মধ্যে সর্বোচ্চ। ঢাকার অলিগলির খুচরা দোকানে ফার্মের লাল ডিম প্রতি হালি ৩৫-৩৬ টাকায় বিক্রি করছেন বিক্রেতারা। কাঁচাবাজারে প্রতি ডজন ডিম ১০০-১০৫ টাকায় কেনা যাচ্ছে। দেশি মুরগি ও হাঁসের ডিম কিনতে চাইলে হালিপ্রতি বাড়তি ১০ টাকা দিতে হবে। খুচরা দোকানে হাঁস ও দেশি মুরগির ডিম প্রতি হালি ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তেজগাঁওয়ের কলমিলতা বাজারে ডিম কিনছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা শফিকুর রহমান খান। তিনি বলেন, তাঁর পাঁচজনের পরিবারে এক ডজন ডিমে দুই দিন যায়। ডিমের দাম না কমলে তাঁর খরচ বাড়বে মাসে ৬০০ টাকার মতো।
সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে, এক মাস আগে প্রতি হালি ফার্মের মুরগির ডিম ২২-২৬ টাকা ছিল। সে হিসেবে এখনকার দর প্রায় ৪২ শতাংশ বেশি। জানতে চাইলে তেজগাঁওয়ের ডিমের আড়তের ব্যবসায়ী মিজানুল ইসলাম বলেন, বিগত তিন-চার বছর দেশে ডিমের দাম উৎপাদন খরচের চেয়ে কম ছিল। এতে অনেক কৃষক খামার বন্ধ করে দিয়েছেন। এখন সে কারণে ডিমের সরবরাহ কম। আবার বর্ষায় হাঁসের ডিম পাড়ার হার কমে যায়। মূল্যবৃদ্ধির এটিও একটি কারণ।

বাজারে প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১৫৫-১৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, যা সপ্তাহখানেক আগেও ১৪০-১৪৫ টাকা ছিল। সাধারণত পবিত্র শবে বরাত ও ঈদুল ফিতরের উৎসবের সময় বাড়তি চাহিদা তৈরি হলে ব্রয়লার মুরগি কেজিপ্রতি ১৬০ টাকা বা তার ওপরে ওঠে। গত ঈদুল ফিতরের সময় বাজারে ব্রয়লার মুরগির দাম ১৬০-১৭০ টাকায় উঠেছিল। এরপর তা কমে যায়।

গাজীপুরের শ্রীপুর এলাকার খামারমালিক ও পোলট্রি খামার রক্ষা জাতীয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার মো. মহসিন প্রথম আলোকে বলেন, আবহাওয়া বৈরী থাকলে সাধারণ বাজারে মাছের সরবরাহ কম থাকে। এতে মুরগির বাজারে কিছুটা চাপ সৃষ্টি হয়। এ কারণে এখন মুরগির দাম কিছুটা বাড়তি।

বাজারে গত দুই সপ্তাহে দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ১০ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ৫ টাকা বেড়েছে। খুচরা দোকানে এখন বাছাই করা দেশি বড় পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৬০ টাকা, মাঝারি দেশি পেঁয়াজ ৫৫ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ ৩৫-৩৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পুরান ঢাকার শ্যামবাজারের পেঁয়াজের আড়ত নবীন ট্রেডার্সের মালিক নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলেন, দেশি পেঁয়াজের সরবরাহ কম। ভারতে পেঁয়াজের দামও কিছুটা বাড়তি। এ কারণে দেশের বাজারে দাম বেড়েছে। তিনি জানান, এক সপ্তাহ আগে পাইকারি বাজারে দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৩৫-৩৬ টাকা ছিল, যা ৪৬-৪৭ টাকা হয়ে গেছে।

বর্ষাজুড়েই কাঁচা মরিচের দাম ওঠানামার মধ্যে আছে। দুই সপ্তাহ আগে বাজারে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ১৬০ টাকা ছিল। এরপর তা কমে ১২০ টাকায় নামে। গত কয়েক দিনের বৃষ্টির পর তা আবার বেড়ে কেজিতে ১৬০ টাকায় উঠেছে। তেজগাঁওয়ের কলমিলতা বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. জহির বলেন, তাঁর দোকানে শুধু কাঁচা মরিচের দরই বেশি। প্রতি আড়াই শ গ্রাম কাঁচা মরিচ তিনি ৪০ টাকায় বিক্রি করছেন। তবে অন্যান্য সবজির দাম ২৫ থেকে ৪০ টাকার মধ্যে।

অবশ্য কারওয়ান বাজারের সবজির আড়তে কাঁচা মরিচের দাম বেশ কম। প্রতি কেজি ৯০-১০০ টাকা চাইছেন বিক্রেতারা।

বাজারে চাল, ডাল, আটা, ভোজ্যতেল, চিনি, আদা, গরুর মাংস ইত্যাদি পণ্যের দামে তেমন কোনো হেরফের নেই। রসুনের দাম বেশ কমেছে। কেজিপ্রতি ৩০-৪০ টাকা কমে তা ৫০-৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সবজির দরও স্বাভাবিক।

Leave a Reply

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT