২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল

ঈদ ঘিরে খুলনায় ব্যস্ত চার সহস্রাধিক খামারি

প্রকাশিতঃ আগস্ট ৭, ২০১৮, ১০:১০ অপরাহ্ণ


কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে খুলনায় চার সহস্রাধিক খামারি পশুপালনে ব্যস্ত সময় পার করছে। জেলায় কোরবানিযোগ্য পশু রয়েছে ৩৬ হাজার ১৬২টি। গত বছরের কোরবানির পশুর তুলনায় এ বছর জেলায় ৪৩ হাজার ৭৮৮টি পশুর সংকট রয়েছে। গেল বছর জেলায় ৭৯ হাজার ৯৫০টি পশু কোরবানি হয়েছে। ফলে এখানকার চাহিদা মেটাতে বাইরের জেলা-উপজেলার ওপর নির্ভর করতে হবে।

প্রাণিসম্পদ দপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, কোরবানির পশু পালনের জন্য খুলনায় চার হাজার ৫৫২ জন খামারি রাত-দিন পরিশ্রম করছে। নগরী ও জেলার ৯টি উপজেলার এসব খামারির বিক্রিযোগ্য গরু রয়েছে ২১ হাজার ১৮৬টি, ছাগল ১২ হাজার ৯৭৭টি ও ভেড়া এক হাজার ৯৯৯টি। এর মধ্যে নগরীতে খামারি রয়েছে ৩৩ জন। তাদের ৩৩০টি গরু ও ১০২টি ছাগল রয়েছে।

উপজেলার মধ্যে ফুলতলায় খামারি ৫৭ জন। গরু এক হাজার ৬২০টি, ছাগল এক হাজার ৫০০টি ও ভেড়া সাতটি। দিঘলিয়ায় খামারি ১৩২ জন। গরু দুই হাজার ১০৯টি, ছাগল এক হাজার ১৩৭টি ও ভেড়া ৩২টি। তেরখাদায় খামারি ৬২২ জন। গরু তিন হাজার ১৫০টি, ছাগল দুই হাজার ৬৭৩টি ও ভেড়া ৩৬৬টি। রূপসায় খামারি ১২৬ জন। গরু ৬৯০টি, ছাগল ১৫০টি ও ভেড়া নেই। দাকোপে খামারি ২১৩ জন, গরু ৮৭০টি, ছাগল ৮৫০টি ও ভেড়া ২৫০টি। কয়রায় খামারি এক হাজার ১৬১ জন। গরু চার হাজার ৭৭৯টি, ছাগল দুই হাজার ১৩৭টি ও ভেড়া নেই। পাইকগাছায় খামারি ৮৮২ জন। গরু দুই হাজার ৯১টি, ছাগল দুই হাজার ২৮৩ জন ও ভেড়া এক হাজার ৮৬টি। ডুমুরিয়ায় খামারি ৬০৯ জন। গরু তিন হাজার ১২০টি, ছাগল এক হাজার ৩০২টি ও ভেড়া ১০২টি এবং বটিয়াঘাটায় খামারি ৭১৭ জন। গরু দুই হাজার ৪২৭টি, ছাগল ৮৪৩টি ও ভেড়া ৫৭টি।

গত বছর কোরবানিযোগ্য পশু ছিল জেলায় ৩১ হাজার ৫৫৫টি। এর মধ্যে গরু ১৭ হাজার ৮১৮টি, ছাগল ছিল ৯ হাজার ৭৮৩টি ও ভেড়া ছিল ২২৬টি। কোরবানিতে জবাইকৃত পশুর মধ্যে গাভি ছিল তিন হাজার ৮২৩টি, ষাঁড় ৩৯ হাজার ৫৫৬টি, মহিষ ৬১টি, ছাগল ৩৬ হাজার ৪০৬টি এবং ভেড়া ১০১টি।

হরিণটানা এলাকার খামারি মো. আব্দুল গফুর বলেন, ‘আমার খামারে ছয়টি অস্ট্রেলিয়ার গরু রয়েছে। যার মধ্যে দুই লাখ টাকা মূল্যের গরুও রয়েছে। নিয়মিত পশুদের পরিচর্যা করছি। কোনো সমস্যা হলে প্রাণিসম্পদ দপ্তরে চলে যাই।’ জেলায় কতটি স্থায়ী ও অস্থায়ী পশুরহাট বসবে, সেটা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক পশুরহাটের চূড়ান্ত তালিকা করবেন।

জেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের ভিএফএ আ. জলিল বলেন, সুষম খাবারের সাহায্যে গরু হৃষ্টপুষ্ট করা হচ্ছে। খামারে এক লাখ ৮০ হাজার থেকে দুই লাখ টাকার গরু রয়েছে। খুলনায় কম পশু পালন হলেও পার্শ্ববর্তী জেলা-উপজেলা থেকে তা জোগান হবে।

Leave a Reply

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT