২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল

আওয়ামীলীগ এমপি, মন্ত্রী ও নেতার নয়, কর্মীর সংগঠন: আমিনুল ইসলাম আমিন

প্রকাশিতঃ আগস্ট ২৯, ২০১৮, ২:০৭ অপরাহ্ণ


আবদুল করিম, লোহাগাড়া প্রতিনিধি) – ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তখন বঙ্গবন্ধুর রক্তাক্ত দেহ সিড়িতে পড়ে আছে। রক্তের দাগ শোকায় নাই। তার আগে বঙ্গবন্ধুর অনেক এমপি, মন্ত্রী কুকুরের মতো ওই খুনী খন্দকার মোস্তাকের দলে গিয়ে হাজির হইয়েছিল। আওয়ামীলীগ নেতা, এমপি, মন্ত্রীর দল হলে ঠিকে থাকার কথা নয়। তাহলে আওয়ামীলীগ কার দল? আওয়ামীলীগ মোলবী আবদুল হালিম এর দল। চিনেন মোলবী আবদুল হালিম কে? অনেকেই  চিনেন না। মোলবী আবদুল হালিম এর কোন পদ ছিল না। মোলবী আবদুল হালিম ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামীলীগ এর নেতা ছিলেন না। তিনি মুজিবের পাগল ছিলেন। বঙ্গবন্ধু যাতে বাংলার ইতিহাস থেকে মুছে যায় বিদেশিরা যাতে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে না পারে সাধারণ মানুষ যাতে তার খবর জেয়ারত করতে না পারে। সেই জন্য বঙ্গবন্ধুর লাশ নিয়ে যাওয়া হয় টুঙ্গি পাড়ার গ্রামে। জানায়া পড়ার জম্য এক জন মাওলানা দরকার। কোথায় পাবে মাওলানা। ডাকা হলো মাওলানা আবদুল হালিম কে। তিনি আসলেন। এসে বল্লেন কি করতে হবে? সেনা অফিসার দমক দিয়ে উচ্চ সূরে বল্লেন এই লাশ দাপন করতে হব। তিনি বল্লেন এই লাশ কার? অফিসার বল্লেন বঙ্গবন্ধুর। তিনি বল্লেন লাশ দেখতে হবে।
 অফিসার বল্লেন বিশ্বাস হয় না? তিনি বল্লেন এটা বিশ্বাস অবিশ্বাস এর কথা না। এটা ধর্মের নীতি। আমি যার জানায়া পাড়াবো তার চেহেরা দেখতে হবে। সেনা অফিসার দমক দিলেন হুমকি দিলেন। কিন্তু মাওলানা আবদুল হালিম তার কথা থেকে সরে আসেন নাই। তিনি বল্লেন লাশ দেখাতে হবে।। সেনা অফিসার ফোন দিলেন উপরের মহলে। উপরের মহল থেকে অনুমতি আসলো। লাশের কফিন নামা হলো। কপিন থেকে কাপনের কাপড় সরানো হল। তিনি দেখলেন এই কপিনে বঙ্গবন্ধু শুয়ে আছে। তিনি দেখলেন যার আঙ্গুলের ইশেরায় সাড়ে ৭ কোটি বাঙ্গালি হেলেছিল ধুলেছিল। যার মুখের কথায় মানুষ জীবন বাজি রেখে যুদ্ব করেছিল। মাওলানা আবদুল হালিম দেখেছিলেন এই কপিনে শুয়ে আছে বঙ্গবন্ধু লাশ নয়, ওই কপিনে শুয়ে আছে ৩০ লক্ষ শহীদের সপ্ন। এই বার অফিসার বল্লেন আপনি লাশ দাপন করেন। তিনি বলেন আমি লাশ দাপন করতে পারবো না। অফিসার বল্লেন এ কেমন কথা। তিনি বল্লেন লাশ গোসল দিতে হবে। অফিসার দমন দিয়ে বল্লেন লাশ দাপন করেন। তিনি বল্লেন বঙ্গবন্ধু যে শহীদ হলো এটা লিখে দিতে। তিনি আবার উপরের মহলে ফোন দিলেন। উপরের মহল থেকে অনুমতি আসলো মাওলানা যেই ভাবে চাই সেই ভাবে লাশ দাপন করুক। এই ধরণের বিশ্বাসী কর্মীর সংগঠন আওয়ামীলীগ। ২৮ অাগস্ট (মঙ্গলবার) বিকেল ৪টায় আমিরাবাদ সিটিজেন পার্ক কমিউনিটি সেন্টারের হল রুমে অনুষ্টিত চট্টগ্রামের  লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে অালোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও মেজবানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন।
লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি খোরশেদ আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে
এবং সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন হিরুর সঞ্চালনায়। উক্ত অালোচনা সভাও দোয়া মাহফিলে প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন
দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, সাবেক এমপি চেমন আরা তৈয়ব। বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পিপি এডভোকেট একেএম  সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের উপ-প্রচারও প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা নুরুল অাবছার চৌধুরী,দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক বিজয় কুমার বড়ুয়া,দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও  সাতকানিয়ার পৌর মেয়র মোঃ জুবাইর, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক,প্রবীণ রাজনীতিবীদ জান মোহাম্মদ সিকদার সহ প্রমুখ। উক্ত অালোচনা সভাও দোয়া মাহফিলে  জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন  আওয়ামীলীগ,যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিকলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সহ সকল সহযোগী অংগসংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।
ছাত্রলীগ, যুবলীগের কর্মীদের উদ্দেশ্যে আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম আমিন আরো বলেন,সামনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন
এই নির্বাচনে নৌকা নিয়ে যেই আসবে তার পক্ষে কাজ করবেন, ফেসবুকে কারো বিরুদ্ধে লিখবেননা, যাকে সমর্থন করেন তার পক্ষে লিখলেও কারো বিরুদ্ধে লিখবেননা।
যাদের বিরুদ্ধে লিখলে জেলে ঢুকানোর ভয় দেখায় তারা কখনও বঙ্গবন্ধুর কর্মী হতে পারেনা। কোন অপশক্তির দল আগামীতে বাংলাদেশে ক্ষমতায় আসতে পারবেনা। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ আবারো ক্ষমতায় আসবে ইনশাল্লাহ।
তিনি আরো বলেন ১৫ই আগস্ট কালরাত্রিতে ঘাতকেরা সেদিন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কে নয়, চেয়েছিলো বাংলাদেশকে হত্যা করতে, বাংলার স্বাধীনতাকে হত্যা করতে, কিন্তু তাদের ধারনা ভুলছিলো সেদিন। বঙ্গবন্ধু চিরঞ্জীব! যতদিন বাংলাদেশ থাকবে, বঙ্গবন্ধু থাকবেন।
বাংলাদেশে অনেক রাষ্ট্র প্রধান ছিলো, ভবিষ্যৎও হবে, কিন্তু আরেকজন শেখ হাসিনা বাংলাদেশ কখনো পাবেনা!
দোয়া ও মোনাজাতের মাধ্যমে দিয়ে অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা হয় এবং উপস্হিত সকলের জন্য  তাবরুকের আয়োজন করা হয়।

Leave a Reply

৯৭/৩/খ, উত্তর বিশিল, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
মোবাইলঃ ০১৭১২-৬৪৩৬৭৩, বার্তা বিভাগঃ ০১৭১২-৬৪৪৩৫০
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]

সম্পাদক:
মোঃ সুলতান চিশতী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
মহসিন হাসান খান (বুলবুল)

নির্বাহী সম্পাদকঃ
মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

সহকারী সম্পাদকঃ
মোঃ আতোয়ার হোসেন

আইন উপদেষ্টাঃ
শাহিন সরকার


.: Developed By :.
Great IT